রাজবাড়ীর জেলার করোনা পরিস্থিতি শুনলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ঢাকা বিভাগের নয়টি জেলার স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব, স্বাস্থ্য পরিসেবায় যুক্ত প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে যুক্ত হন সরকার প্রধান।
সে সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম, পৌর মেয়র মহম্মদ আলী চৌধুরী, জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল জব্বার কথা বলেন। সে সময় রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার মোঃ মিজানুর রহমান পিপিএম, রাজবাড়ীর সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ নুরুল ইসলাম, রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের তত্ববধায়ক ডাঃ দিপক কুমার বিশ্বাসসহ জেলা পর্যায়ের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগত রমজানে সবাইকে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঘরেই তারাবির নামাজ পড়ার আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে কৃষিকাজ, ওষুধ শিল্পসহ অতিপ্রয়োজনীয় শিল্পকারখানা চালু রাখতে হবে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় আরও ৫০ লাখ রেশন কার্ড দেয়া হবে। প্রায় এক লাখ কোটি টাকার অর্থনৈতিক প্রণোদনার পাশাপাশি আগামী তিন অর্থ বছরের জন্য পরিকল্পনা নেয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
সংক্রমণের সন্দেহ হলেই করোনা পরীক্ষা করতে হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কারো প্রতি অমানবিক হওয়া যাবে না। রমজানে সবাইকে ঘরে তারাবি নামাজ পড়ারও আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে নানা কর্মসূচি নিয়েছিলাম কিন্তু করোনা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ার কারণে কিছুটা ধাক্কা আমাদের দেশে আসে আসে। এজন্য আমরা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন এবং ২৬ মার্চের অনুষ্ঠান বাতিল করি। জনসমাগম বাদ দিতে এসব করেছি আমরা।
শেখ হাসিনা বলেন, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ জেলাসহ বেশ কয়েকটি জেলায সব থেকে বেশি আক্রান্ত। অন্যান্য জেলায়ও কিছু আছে কিন্তু ঢাকা এবং এর আশপাশে ভাইরাস কেন এত বেশি হলো। এটি নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করতে চাই। এ রোগে এ পর্যন্ত যারা মারা গেছেন তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করি আমি। যারা এখন চিকিৎসারত আছেন তারাও দ্রুত আরোগ্য লাভ করুক, এটাই আমি চাই।
তিনি বলেন, যেহেতু সবকিছু এখন বন্ধ। অনেক মানুষের কষ্ট হচ্ছে। যারা দিনমজুর কৃষক-শ্রমিক-মেহনতী মানুষ, খেটে খাওয়া মানুষ, ছোট ব্যবসায়ী, এমনকি নিম্নবিত্তদের অনেক কষ্ট হচ্ছে। আমরা প্যাকেজ ঘোষণা করেছি। সবাইকে সহযোগিতা করব। এমনকি এটা আমরা শুরু করেছি। মানুষের কাছে হাত পাততে পারে না যারা, তাদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছি।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘৫০ লাখ মানুষের জন্য রেশন কার্ড করা আছে, যারা ১০ টাকার চাল পায়। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আরও ৫০ লাখ মানুষের রেশন কার্ড করে দেব। আমরা এমনি দিতে গেলে অনেক সময় সমস্যা হয়। সেই ধরনের কিছু ঘটনা ঘটার ফলে এটা স্থগিত করে তালিকা করার জন্য নির্দেশ দিয়েছি।

(Visited 1,127 times, 1 visits today)