‘কষ্ট ছাড়াই ঈদির আগে টাহা পাইলাম’-

সোহেল রানা, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

‘ভাতা’র টাহা নিতি প্রতিবারই কষ্ট করতি হয়। এবার ইউনিয়ন পরিষদে যাইয়ে টাহা নিতি কোন কষ্ট করতি হয় নাই। ঈদির সামনে হোলিও ভাতার টাহা আগেই দিছে। তাও আবার শেখের বেটি এক মাসের টাহা আমাগো ঈদির জন্য আগাম দিছে। ৩ মাসের টাহা এক হাতে পালাম। উপকার হবিনে টাহা পায়ে।’ বলছিলেন এক ভাতাভোগী জয়গুন বেগম।

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলাতে জুন মাস পর্যন্ত একযোগে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ভাতাভোগীদের ভাতা প্রদান করা হয়। বিধবা, বয়স্করা ৩ মাসে ১৫শত টাকা, প্রতিবন্ধিরা ২হাজার ২শত ৫০টাকা, দলিতদের ১৫শত টাকা ও বৃত্তি প্রদান করা হয়।

উপজেলা সমাজসেবা অধিদপ্তর সুত্রেজানাগেছে, উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন নারুয়া, বালিয়াকান্দি, বহরপুর, নবাবপুর, ইসলামপুর, জঙ্গল, জামালপুর ইউনিয়নে দলিত ৮৪জন, বয়স্ক ৬হাজার ৯শত ১৫জন, বিধবা ২হাজার ২জন, প্রতিবন্ধি ২হাজার ৩শত ৭২জন, উপবৃত্তি পায় ১শত ৭৭জনসহ ১১হাজার ৫শত ৫০জন সুবিধা পাচ্ছেন।

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা অজয় হালদার বলেন, ঈদকে সামনে রেখে ৭টি ইউনিয়নে ইতিমধ্যেই ভাতাভোগীদের ভাতার নগদ অর্থ প্রদান শেষ করেছি। একদিকে করোনা অন্যদিকে ঈদ। ব্যাংকে টাকা তুলতে গিয়ে হয়রানীর শিকার হবে বয়বৃদ্ধরা। এ থেকে চিন্তা করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদে বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

এ কার্যক্রম করার সময় সামাজিক দূরুত্ব বজায় রেখে মানুষের দোড়গোড়ায় সেবা পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। ভাতা প্রদানের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলামের নির্দেশনায় ও চেয়ারম্যানদের সহযোগিতায় এবং ব্যাংক কর্মকর্তাদের আন্তরিকতায় সম্পন্ন করতে পেরেছি।

(Visited 116 times, 1 visits today)