রাজবাড়ীতে যৌতুকের জন্য মারপিটের পর গৃহবধুর মুখে বিষ ঢেলে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

তিন লাখ টাকা যৌতুক না পেয়ে সেতু খাতুন (২৮) নামে এক গৃহবধুকে মারপিটের পর মুখে বিষ ঢেলে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই অভিযোগে গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
মামলায় রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুরের সিরাজ মিয়ার ওষুধ ব্যবসায়ী ছেলে নেকবর আলী মিয়া (৩০), নেকবরের মা রাফেজা বেগম (৫০), নেকবরের বোন যমুনা বেগম (৩০) ও নেকবরের বড় ভাই আক্কাস আলী মিয়া (৪০) কে আসামি করা হয়েছে।
জানাগেছে, ২০১৩ সালের ৬ ডিসেম্বর সদর উপজেলার খানখানাপুর ইউনিয়নের আলীমুদ্দিন মাতুব্বরের পাড়া গ্রামের নুরুদ্দিন সেখের মেয়ে সেতু খাতুনের সাথে একই উপজেলার রামকান্তপুরের সিরাজ মিয়ার ওষুধ ব্যবসায়ী ছেলে নেকবর আলী মিয়া সাথে বিয়ে হয়। বর্তমানে তাদের সংসারে সোয়েব হাসান নামে দুই বছর দুই মাস বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।
গৃহবধু সেতু খাতুন জানান, বিয়ের পর থেকেই তিন লাখ টাকা যৌতুকের দাবী করে আসছে নেকবর। তিনি বাবার বাড়ী থেকে ওই টাকা এনে না দেয়ায় নিয়মিত ভাবে তাকে নির্যাতন করে আসছিলো নেকবরসহ অন্যান্য আসামিরা। যে কারণে ২০১৭ সালের ১৫ অক্টোবর রাজবাড়ীর আদালতে যৌতুক নিরোধ আইনে নেকবরের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। তবে ওই মামলা দায়েরের পর নেকবর তার সাথে ভালো ব্যাবহার করে। এক পর্যায়ে তাকে পটিয়ে সুকৌশলে নেকবর চলতি বছরের ২০ আগষ্ট তাকে দিয়ে ওই মামলাটি আদালত থেকে তোলায়। তবে মামলাটি তোলার পর পরই নেকবর তাকে আদালত চত্বরে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে সে নেকবরের বাড়ীতে যান। তবে নেকবর ও তার পরিবারের সদস্যরা বাড়ীর গেট ভেতর থেকে বন্ধ করে রাখে যে কারণে সে বাড়ীতে প্রবেশ করতে পারেন না। ওই রাতে রাজবাড়ী থানার একজন পুলিশ কর্মকর্তা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পাশে থাকা নেকবরের এক ফুপু বাড়ীতে রাতে থাকার ব্যবস্থা করে দেন। পর দিন সকালে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তিনি নেকবরের বাড়ীতে প্রবেশ করে। এর পর পুনরায় তিন লাখ টাকার যৌতুকের দাবী করাসহ তার উপর শুরু হয় অত্যাচার। যার অংশ হিসেবে গত ৩০ আগষ্ট সকাল সাড়ে ৮টার দিকে নেকবরসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তাকে বেধড়ক মারপিট করে মুখে বিষ ঢেলে দেয়। তিনি গুরুত্ব অসুস্থ্য হয়ে পরলেও তারা তাকে হাসপাতালে নেয় না। খবর পেয়ে তার ভাই ও মা নেকবরের বাড়ীতে আসেন। আসামিরা তাদেরও মারপিট করে। পরবর্তীতে তার বাবা স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাকে উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। যে কারণে তিনি নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে নেকবরসহ অন্যান্য আসামিদের বিরুদ্ধে গত ৫ সেপ্টম্বর রাজবাড়ীর আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।
এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও রাজবাড়ী থানার এসআই মেজবা উদ্দিন জানান, আদালতের নির্দেশে মামলাটি গতকাল রাজবাড়ী থানায় রেকর্ড করা হয়েছে। ঘটনা তদন্ত করার পাশাপাশি আসামিদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান শুরু করাও হয়েছে।

(Visited 663 times, 1 visits today)