৪ কিশোর পালাক্রামে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে তরুণীকে –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

৪ জন কিশোর পালাক্রামে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করেছে ঝর্ণা বেগম (১৮) নামে তরুণীকে। ওই চার জন ধর্ষক রাজবাড়ীর জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট শুধাংশ শেখরের আদালতে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওই সব কথা স্বীকার করে।


১৪ থেকে ১৬ বছর বয়সী ওই চার কিশোর হলো, জেলার কালুখালীর সর্বকুলটিয়া গ্রামের মন্টু মন্ডলের ছেলে নয়ন মন্ডল ও শুকুর আলী মন্ডলের ছেলে হাসিবুল ইসলাম, বিল শ্যাম সুন্দর গ্রামের আলম মন্ডলের ছেলে অনিক মন্ডল এবং মহিষ লুটিয়া গ্রামের সালাম মনন্ডলের ছেলে সুমন মন্ডল কালু।


কালুখালী থানার ওসি মোঃ মাসুদুর রহমান রাজবাড়ী বার্তা ডট কম কে জানান, ওই জন কে গত বৃহস্পতিবার সকালে গ্রেপ্তার করে বিকালে আদালতে সোপর্দ করেন তারা। আদালতের কাছে ওই চার চজ আরো বলেছে, পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে ঝর্ণা বেগমের সাথে মোবাল ফোনে কথা বলতো নয়স মন্ডল। গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নয়ন সুকৌশলে ঝর্ণাকে তার নিজ বাড়ীর অদূরে থাকা কালিকাপুরের একটি কলা বাগান ডেকে আনে। সে সময় প্রথমে নয়ন এবং পরবর্তীতে পর্যায়ক্রামে হাসিবুল, অনিক ও সুমন তাকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি ঝর্ণা পুলিশকে জানানোর কথা বলতেই ওই চার জন যৌথভাবে বিবস্ত্র অবস্থায় ঝর্ণার ওড়না দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার পর মরদেহ ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। ওই ঘটনার পর কালুখালী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। পরবর্তীতে দ্রুততার সাথে অভিযান চালিয়ে পুলিশ ধর্ষক চার জনকেই গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়।


উল্লেখ্য, ঝর্ণা বোয়ালিয়া ইউনিয়নের চরতিলোকা গ্রামের হাসানের মেয়ে। ৫ আগে তার বিয়ে হলেও তিনি বিয়ের এক মাস পরেই স্বামীর বাড়ী থেকে বাবার বাড়ীতে ফিরে আসেন এবং বাবার বাড়ীতেই বসবাস করে আসছিলেন। গত বুধবার দুপুরে ওই কলা বাগান থেকে বিবস্ত্র অবস্থায় পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে।

(Visited 415 times, 1 visits today)