দুই অপহরণকারী গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক :

Rajbari- (3)- 02.01.2015

রাজবাড়ী জেলা সদরের আলীপুর ইউনিয়নের হুগলাডাঙ্গী গ্রামের একটি মাছের খামারে প্রবাসীর কলেজ পড়–য়া ছেলেকে জিম্মি করে রেখে ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করার খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পুলিশ গত বৃহস্পতিবার রাতে ওই ছাত্রকে উদ্ধার করার পাশাপাশি ওই জন অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করেছে।
জেলা সদরের বাণিবহ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল লতিফ মিয়া বলেন, ১ জানুয়ারী পালন উপলক্ষে গত বৃহস্পতিবার রাতে জেলা সদরের বাণিবহ বাজারে স্থানীয় যুবলীগের পক্ষ থেকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ওই দিন সন্ধ্যা ৭ টার দিকে এ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে জেলা সদরের রামকান্তপুর ইউনিয়নের মাটিপাড়া গ্রামের ইরাক প্রবাসী শাজাহান মিয়ার ছেলে ও জেলা শহরের সজ্জনকান্দার ইপিআই পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র রহিম মিয়া (১৮) বাণিবহ বাজারে আসে।
অপহৃত ছাত্র রহিম মিয়া জানান, অনুষ্ঠান স্থলে আসার পর পরই জেলা সদরের বাণিবহ ইউনিয়নের লক্ষিনারায়নপুর গ্রামের বিল্লাল ব্যপারীর ছেলে শহিদুল ইসলাম সোহাগ (২২), একই গ্রামের আব্দুস সালাম খানের ছেলে আমির হোসেন খান (২১) ও অপু নামক অপর এক জন যুবক তাকে ঘিরে ধরে। এ সময় তারা জরুরী কথা আছে বলে তাকে একটি মোটর সাইকেলে জোরপূর্বক তুলে জেলা সদরের আলীপুর ইউনিয়নের হুগলাডাঙ্গী গ্রামের জনৈক জয়নাল মেম্বারের মাছের খামারের একটি ঘরে নিয়ে আটকিয়ে রাখে। এ সময় অজ্ঞাত পরিচয়ের আরো ২/৩ জন যুবকও সেখানে আসে। তারা তার মা সালমা বেগমের ফোন নম্বর নিয়ে মুক্তিপন বাবদ নগদ ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। আর টাকা না দিলে তাকে হত্যার পর মাছের খামারে লাশ ফেলে দিয়ে তা মাছ দিয়ে খাওয়াবে। একই সাথে তারা টাকা নিয়ে বাণিবহ বাজারেও তার মা’কে আসতে বলে। পরে তার মা বিষয়টি জেলা সদরের বাণিবহ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল লতিফ মিয়াসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের অবহিত করে এবং কৌশলে বাণিবহ বাজারে অবস্থান করা অপহরণকারী শহিদুল ইসলাম সোহাগকে আটক করে।
রাজবাড়ী থানার এসআই নিজাম উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে রাতেই থানা পুলিশের সদস্যরা বাণিবহ বাজারে যান। তারা আটককৃত শহিদুল ইসলাম সোহাগের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহণ করে ওই দিন রাত ৩ টার দিকে জেলা সদরের আলীপুর ইউনিয়নের হুগলাডাঙ্গী গ্রামের জনৈক জয়নাল মেম্বারের মাছের খামারে অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় অপহৃত ছাত্র রহিম মিয়াকে উদ্ধার করার পাশাপাশি অপর অপহরণকারী আমির হোসেন খানকেও গ্রেপ্তার করেন। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অন্যান্য অপহরণকারীরা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার দুপুরে রহিমের মা সালমা বেগম বাদী হয়ে রাজবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।

(Visited 20 times, 1 visits today)