মা ও বোনকে জিম্মি করে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ,গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক :

ধারালো অস্ত্রের মুখে মা ও বোনকে জিম্মি করে সদ্য অনার্স পাস করা এক কলেজ ছাত্রীকে নিজ বাড়ী থেকে অপহরণ করা হয়েছে। তবে অপহৃত ওই ছাত্রীকে স্থানীয়রা প্রায় ৫ কিলো মিটার দুরের এলাকা থেকে উদ্ধার করতে সমর্থ হয়েছে। সেই সাথে তারা আটক করতে সক্ষম হন তিন জন অপহরণকারীকে। এ ঘটনায় গত সোমবার সকালে ওই কলেজ ছাত্রী বাদী হয়ে ৭ জন অপহরণকারীকে সনাক্ত করে এবং ৮/৯ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে রাজবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
ওই ছাত্রী (২৫) বলেন, তাকে বিয়ে করার লক্ষ নিয়ে এক বছর পূর্বে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের রমজান সরদারের সৌদী প্রবাসী ছেলে জাহাঙ্গীর সরদার (২৭) তাদের জেলা সদরের শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের বাড়ীতে আসে। তবে জাহাঙ্গীর সরদার (২৭) কে তার পছন্দ হয়নি। এ ঘটনার পর জাহাঙ্গীর পুনরায় সৌদী আরবে চলে যান এবং মোবাইল ফোনে তাকে বিরক্ত করতে শুরু করেন। গত রবিবার জাহাঙ্গীর দেশে ফিরে আসে। ওই দিন সন্ধ্যার পর ধারালো অস্ত্রধারী ১৫/১৬ জনের একদল দূর্বৃত্ত তাদের বাড়ীতে প্রবেশ করে। দূর্বৃত্তরা সে সময় তাকেসহ তার মা ও ছোট বোনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এবং তার মুখ কাপড় দিয়ে বেঁধে একটি টেম্পুতে তোলে। ওই টেম্পুটি তার বাড়ী থেকে প্রায় ৫ কিলো মিটার দূরে থাকা জেলা সদরের মূলঘর ইউনিয়নের শাদিপুর এলাকায় পৌছলে স্থানীয়রা টেম্পুটির গতিরোধ করে এবং তাকে উদ্ধার করে। এ সময় অন্যান্য অপহরণকারীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও এলাকাবাসীরা তিন জন অপহরণকারীকে আটক করতে সক্ষম হন। আটককৃতরা হলো, সৌদী প্রবাসী জাহাঙ্গীর সরদারের চাচাতো ভাই ও জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের হানিফ সরদারের ছেলে নাছির সরদার (৩২), গোয়ালন্দ পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের বিপেন রায়ের পাড়ার আবুল হোসেনের ছেলে ও গোয়ালন্দ কামরুল ইসলাম কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র মেহেদী হাসান (১৭) ও টেম্পু চালক জেলা সদরের চর খানখানপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে হাবিবুর রহমান (৪০)।
আটক হওয়া প্রবাসী জাহাঙ্গীর সরদারের চাচাতো ভাই নাছির সরদার বলেন, সৌদী আরবে থাকা কালিন সময়ে ওই ছাত্রী ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা জাহাঙ্গীরের কাছ থেকে বেশ কিছু পরিমান অর্থ হাতিয়ে নেয়। তবে জাহাঙ্গীর দেশে ফিরে আসার পর ওই ছাত্রী আর তাকে বিয়ে করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। যে কারণে জাহাঙ্গীর দেশে ফিরে এসে ওই ছাত্রীকে তার বাড়ী থেকে তুলে এনে বিয়ে করার উদ্যোগ নেয়। ফলে জাহাঙ্গীরের অনুরোধ রক্ষা করতেই তারা ওই ছাত্রীকে তার বাড়ী থেকে আনতে গিয়েছিল।
জেলা সদরের খানখানাপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের আইসি এসআই রঞ্জন কুমার বিশ্বাস জানান, রাত ৮ টার দিকে জেলা সদরের মূলঘর ইউনিয়নের শাদিপুর এলাকা থেকে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়। একই সাথে নাছির সরদার, মেহেদী হাসান ও হাবিবুর রহমানকে একটি ধারোলো চা’পাতিসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় গতকাল সোমবার সকালে ওই কলেজ ছাত্রী বাদী হয়ে ৭ জন অপহরণকারীকে সনাক্ত করে এবং ৮/৯ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে রাজবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

(Visited 25 times, 1 visits today)