চুরি মামলার আসামীকে গণপিটুনি দিয়ে পদ্মায় নিক্ষেপ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

গত মঙ্গলবার গভীর রাতে রাজবাড়ী জেলা সদরের মাছেঘাটা এলাকায় এক চুরি মামলার প্রধান আসামী যুবককে গণপিটুনি দিয়ে মৃত ভাবে পদ্মা নদীতে নিক্ষেপ করা হয়েছে। গত বুধবার সকালে নদীতে থাকা জেলেরা ওই যুবক উদ্ধার করে। তাকে গুরুতর অবস্থায় রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সেই সাথে রাজবাড়ীর ডিবি পুলিশের সদস্যরা তাকে হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করেছে। ওই যুবকের নাম আল আমিন ওরফে অন্তর (১৮)। তার পিতার নাম মোকারম সেখ। বাড়ী জেলা শহরের লক্ষিকোল গ্রামে।
হাসপাতালে ভর্তি থাকা অন্তর জানায়, দেড় মাস পূর্বে জেলা শহরের বাসিন্দা এক মহিলার পরকিয়া প্রেমিকের সাথে করা অন্তরঙ্গ মুহুর্তের দৃশ্য সে তার মোবাইল ফোনে ধারন করে। এ ঘটনার পর ওই মহিলার স্বামীসহ একটি গ্রুপ তার উপর ক্ষিপ্ত হয়। তারা তার ক্ষতি করতে উঠেপরে লাগে। তাছাড়া গত ১২ আগষ্ট রাতে জেলা শহরের আঠাশকলোনী গ্রামের পাট ব্যবসায়ী মোনোয়ার হোসেন মোনোর বাড়ীতে চুরির ঘটনা ঘটে। চোরেরা ওই বাড়ীর স্বর্ণালংকারসহ ৮লাখ ৮৩ হাজার টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মোনো তাকে প্রধান আসামী করে রাজবাড়ী থানায় একটি দশ্যুতা মামলা দায়ের করে। গত মঙ্গলবার রাত আড়াইটার মনোসহ স্থানীয় ওই গ্রুপের সদস্যরা তাকে মেছোঘাটা এলাকায় ধরে নিয়ে যায় এবং ওই ভিডিও দৃশ্য ধারন করা মোবাইল ফোনটি ছিনিয়ে নেয়। একই সাথে মোনোর সহযোগী শিমুল, মুকুল, নিরব, হানিফ, রমজান ও রিংকু তাকে বেধড়ক মারপিট করে। এক পর্যায়ে গুরুতর আহত অবস্থায় মৃত ভেবে পাশে থাকা পদ্মা নদীর মধ্যে তাকে ফেলে দেয়। নদীর পানিতে ফেলে দেবার পর তার হুস ফেরে এবং সে কোন রকমে পানি থেকে তীরে ফিরে আসে। সেখান থেকে গত বুধবার সকাল ৮ টার দিকে নদীতে মাছ ধরার কাজ করতে থাকা জেলেরা তাকে উদ্ধার করে নিজ বাড়ীতে পৌছে দেয়। সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে বাড়ীর লোকজন তাকে রাজবাড়ী হাসপাতালে এনে ভর্তি করে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও রাজবাড়ী ডিবি পুলিশের এসআই জামান জানান, চুরির ঘটনায় পাট ব্যবসায়ী মোনোয়ার হোসেন মোনো আন্তরকে প্রধান আসামী করে গত ১৬ আগষ্ট রাজবাড়ী থানায় একটি দশ্যুতা মামলা দায়ের করে। মামলার পর থেকেই অন্তর ছিল আতœগোপনে। বুধবার সকালে তার হাসপাতালে অবস্থার করার সংবাদ পেয়ে সেখান থেকেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

(Visited 11 times, 1 visits today)