কালুখালীর সাপের খামার পরির্দশন করলেন জেলা প্রশাসক – সাপের খামার থেকে অধিক পরিমান অর্থ আয় করা সম্ভব

35

সাপের খামারের এই ব্যাতিক্রম উদ্যোগ সাধারণ মানুষের মধ্যে সারা ফেলেছে। এ খামার থেকে বিপুল পরিমান অর্থ আয় করা সম্ভব, বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অবলম্বণ করে সর্ব উচ্চ সর্তক অবস্থায় সাপের খামার পরিচর্যা করার কথা বলেছেন, রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম খান।
তিনি গত ৫ জুলাই দুপুরে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউপির কাসাদাহ গ্রামে সাপের বিষ উৎপাদনের লক্ষে পরীক্ষামূলক করা সাপের খামারটি পরিদর্শন কালে এসব কথা তিনি বলেন। এ সময় জেলা প্রশাসকের সহধর্মিনী আফরোজা ইসলাম, মেয়ে রাইসা মাসুমা, কালুখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসির উদ্দিন মাহমুদ, মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ বদর উদ্দিন সরদার, খামারের মালিক রবিউল ইসলাম রঞ্জু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক খামারটির বিভিন্ন দিক ঘুরে দেখেন, এ সময় ফার্ম উন্নয়ন ও নিবন্ধন পেতে প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করেন। আর্দশ জৈব সার ভার্মি কম্পোস্ট উৎপাদন করে অর্থ উপার্জনের পাশাপাশি সাপের বিষ উৎপাদনের লক্ষে পরীক্ষামূলক করা সাপের খামার গড়ে তুলেছে এলাকার তরুন সমাজ সেবক মোঃ রবিউল ইসলাম রঞ্জুর নেতৃত্বে কয়েকজন বেকার যুবক। খামারটিতে  বিভিন্ন প্রজাতির সাপ রয়েছে ইতি মধ্যে ফার্মের নিজেস্ব প্রচেষ্টায় ১৯ টি গোখরার বাচ্চা দিয়েছে এনিয়ে এলাকায় ব্যপক সাড়া পরেছে সাপের বাচ্চা দেওয়ায় উদ্যেক্তা বেশ আশাবাদী হয়েছে।

এ দিকে উদ্যেক্তাগন জানিয়েছেন, শুধুমাত্র সরকারী অনুমতি পেলেই বিষ আমদানী করে ব্যাপক লাভবান হবে তারা। এদিকে প্রতিনিয়ত দর্শনার্থীরা ভীর করছে খামারটিতে দর্শনার্থীদের চাপে বর্তমানে শুক্র ও শনিবার সাধারণ দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। জৈব সার ও সাপের ফার্মের পৃষ্ট পোষক হিসাবে কাজ করছে রঞ্জুর ভাই এটিএন বাংলার কর্মাশিয়াল অফিসার মোঃ মনজুরুল ইসলাম মঞ্জু, পাংশা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি দিবালোক কুন্ডু জীবন। ফার্মের সার্বিক তত্তবধায়নে রয়েছে রাজবাড়ী সরকারী কলেজের প্রাণি বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক মোঃ নুরুজ্জামান। ফার্মের বিভিন্ন দিক দেখছেন রাজবাড়ী সরকারী কলেজে পাণিবিজ্ঞান বিভাগে মার্স্টাসে অধ্যায়নরত তন্ময় সরকার। সকলের চেষ্টায় রাজবাড়ী জেলার একমাত্র সাপের ফার্মটি সফল ভাবে চলার জন্য সরকারী অনুমদোন প্রত্যাশা করেন বেকার ওই উদ্যেক্তরা। এর আগে রাজবাড়ীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক গোপাল চন্দ্র দাস ফার্মটি পরিদর্শন করেছেন। বর্তমানে ফার্ম এলাকায় জৈব সারের পরিধি বৃদ্ধি হয়েছে সাপের ফার্মের জন্য আলাদা একটি গবেষনাগার নির্মান করেছে উদ্যেক্তরা পরিকল্পনা রয়েছে একটি সুন্দর পার্ক নির্মান করার যেখানে প্রায় সবই হবে সাপের আঙ্গিকে।

(Visited 107 times, 1 visits today)