গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতা জাহাঙ্গীরের খুনিদের গ্রেপ্তারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

আজু সিকদার :

09ntitled-1

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌর ছাত্রলীগের সহসভাপতি ও মেধাবী ছাত্র জাহাঙ্গীর হোসেনের খুনিদের গ্রেপ্তার ও ফাঁসির দাবীতে গতকাল রবিবার মাবনবন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ করা হয়েছে। উপজেলাবাসীর ব্যানারে অনুষ্ঠিত ওই কর্মসূচী থেকে আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেপ্তার করা না হলে ঢাকা-খুলনা মহা-সড়ক অবরোধ করারও ঘোষনা দেয়া হয়েছে।
চাঞ্চল্যকর এ হত্যা কান্ডের ব্যাপারে সরকারী দল ও অঙ্গসংগঠনের পক্ষ থেকে কোন প্রতিবাদ না থাকা ও রহস্যজনক নীরবতা নিয়ে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মানববন্ধনে অংশ নেয়া জাহাঙ্গীরের স্বজন, এলাকাবাসী ও শুভাকাঙ্খিরা। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মহা-সড়কের গোয়ালন্দ পৌর জামতলা এলাকায় মানবন্ধনে মহাসড়কের উভয় পাশে শত শত মানুষ অংশ নেয়। এসময় জাহাঙ্গীরের বৃদ্ধ বাবা-মা ছেলে হত্যার বিচার চাইতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ মিছিল মহাসড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বরাবর একটি স্বারকলিপি পেশ করা হয়। কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন নিহত জাহাঙ্গীরের পিতা ইসমাইল হোসেন মোল্লা, মা আনোয়ারা বেগম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম মাহ্বুবুর রাব্বানী, আওয়ামীলীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মৃধা, আওয়ামীলীগ নেতা আবুল কাশেম দেওয়ান, উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের সভাপতি আনিসুর রহমান মোল্লা, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, জাহাঙ্গীরের বন্ধু ও হত্যাকান্ডের সময় ঘাতকদের হামলায় আহত তুহিন দেওয়ান প্রমুখ।
উল্লেখ্য, গত ১৩ জুলাই রাত ৯টার দিকে ছাত্রলীগ নেতা জাহাঙ্গীর বাড়ি ফেরার পথে কামরুল ইসলাম কলেজের সামনে তার মোটর সাইকেলের গতি রোধ করে চিহ্নিত দূর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে হত্যা করে। ঘটনাস্থল থেকে এলাকাবাসী পৌর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইমরান হোসেন আকাশকে রক্তাক্ত চাকুসহ আটক করে পুলিশে দেয়। এছাড়া মঞ্জুর হোসেন নামের এজাহারভুক্ত অপর আসামীকে গ্রেপ্তার করে থানা পুলিশ। হত্যাকান্ডের পরদিন ১১ জনের নাম উল্লেখ করে জাহাঙ্গীরের পিতা থানায় মামলা করেন।

(Visited 26 times, 1 visits today)