“পাংশায় পরকীয়া প্রেমিকের হাতে প্রাণ গেলে গৃহবধু মাহফুজার”

বার্তা নিউজ :

13_152228

“দীর্ঘ ৪ বছর ধরে মাহফুজার সাথে ছিলো আমার পরকীয় প্রেমের সম্পর্ক। বিষয়টি এলাকা প্রকাশ পেলে ৩ বছর পূর্বে এ নিয়ে গ্রাম্য শালিসও হয়। তার পর থেকে দু’জনে মোবাইল ফোনে কথা বলতাম। ফোনের মাধ্যমেই জায়গা নিধারণ করে দেখা করতোম রাতে। গত মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৫ টার দিকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মাহফুজাকে সে ডেকে আনে লিয়াকত আলীর পাট ক্ষেতে। সেখানে কিছু সময় তার সাথে কথা বলার এক পর্যায়ে মাহফুজা বিয়ে করার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। এক পর্যায়ে হয় তাদের কথা কাটাকাটি। সে সময় পাট ক্ষেতের কাঁদার মধ্যে মাহফুজার মুখ চেপে ধরি। এতে কিছু সময় পর তার মৃত্যু হয়। পরে লাশটি ফেলে রেখে সেখান থেকে পালিয়ে আসি। রাত ১১ টার দিকে আমি ওই পাট ক্ষেতে যাই এবং লাশটি নিয়ে পাশে থাকা জোনাব আলীর নির্মাণাধিন বাথ রুমের সেফটি ট্যাংকির পানির মধ্যে ফেলে দেই।” গত বৃহস্পতিবার সকালে আটক হওয়া মাহফুজার পরকীয় প্রেমিক শামীম মন্ডল পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে এবং ১৬৪ ধারায় আদালতে দেয়া জবানবন্দীতে হত্যার ওই ঘটনার বর্ণনা দেন।
রাজবাড়ীর পাংশা থানার এসআই তরকদার হাবিব জানান, শামীমের স্বীকারোক্তি মোতাবেক মাহফুজার কাপড় এবং মোবাইল ফোনটিও উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল সকালে ময়নতদন্তের পর লাশ মাহফুজার পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মাহফুজার বাবা ইব্রাহিম মল্লিক বাদী হয়ে ঘাতক শামীমের বিরুদ্ধে গতকাল সকালে পাংশা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।
উল্লেখ্য, রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার মৌরাট ইউনিয়নের জীবননালা গ্রামের দিনমজুর স্বামী রমজান মন্ডলের স্ত্রী মাহফুজা বেগম (৩০) এর লাশ নিখোঁজ হওয়ার ১২ ঘন্টা পর গত বুধবার সকালে নির্মানাধিন বাথ রুমের টাংকির মধ্য থেকে পুলিশ উদ্ধার করে।

(Visited 48 times, 1 visits today)