অনন্য নজির, গাঁজার চালনসহ মাদক ব্যবসায়ী ছেলেকে তুলে দিলেন পুলিশে –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

RAJBARI - (1)-17.07

মাদক ব্যবসায়ী ছেলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে এক রিকশা চালক বাবা তার ছেলেকে গাঁজার চালানসহ থানা পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন। গত শনিবার রাতে রাজবাড়ী জেলা শহরের বিনোদপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ বিক্রির উদ্দেশ্যে মজুদ করা তিন শত গ্রাম গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী মিলন সেখ (২৬) কে গ্রেপ্তার করেছে। এ ঘটনায় গতকাল রবিবার সকালে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
গ্রেপ্তার হওয়া মিলন সেখের রিকশা চালক বাবা মজিদ সেখ বলেন, তার তিনটি ব্যাটারী চালিত অটো রিকশা ছিল। দুইটি রিকশা ইতোমধ্যেই মিলন বিক্রি করে দিয়েছে। কয়েক মাস আগে তার হেফাজতে থাকা একটি মাত্র অটো রিকশাটিরও ব্যাটারী চুরি করে নিয়ে বিক্রি করে দেয়। ফলে সংসারে মিলনকে নিয়ে চলছে পুরোদমে অশান্তি। পথে বসার মত অবস্থায় দাঁড়িয়েছেন তারা। অথচ দুই ছেলে মেয়েকে নিয়ে মিলন এক সময় সচ্ছল অবস্থানে ছিল। অসৎ সঙ্গের কারণে সে নিজেও গাঁজা সেবন করছে এবং ওই গাঁজা সংগ্রহ করে বিক্রিও করছে। ফলে তিনি বাধ্য হয়ে ছেলেকে গাঁজার চালানসহ আটক করেন এবং থানা পুলিশে খবর দেন।
স্থানীয় বাসিন্দা ফজলুল হক বলেন, মাদক সেবী ও বিক্রয়কারী প্রতিটি পরিবারের অভিভাবকরা যদি রিকশা চালক মজিদ সেখের মত কঠোর হন, তবে দেশে মদক সেবী ও বিক্রয়কারীর সংখ্যা শূণ্যের কোঠায় নেমে আসবে। কারণ প্রতিটি অভিভাবই জানেন তার সন্তান কি খাচ্ছে, কার সাথে মিশছে, কিশের ব্যবসা করছে। তাই প্রতিটি বাবা, মা ও অভিভাবক নষ্ট হবার আগেই সন্তানদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে পরিবার, সমাজ ও দেশ বাঁচবে।
রাজবাড়ী থানার এএসআই রমজান খন্দকার বলেন, মিলনকে তার বাবা পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন। তিনি গত শনিবার রাত ২ টার দিকে মিলনকে তার বাড়ী থেকে গ্রেপ্তার করেন এবং তার কাছ থেকে তিন শত গ্রাম গাঁজাও উদ্ধার করেন। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনিও মনে করেন, মাদক নির্মূলে প্রতিটি পরিবার সোচ্চার হলে ভয়াবহ সামাজিক এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র। তিনি মাদক সেবী ও ব্যসায়ীদের বিরুদ্ধে রিকশা চালক মজিদ সেখের মত কঠোর অবস্থান নেবারও আহবান জানান।
এদিকে, গ্রেপ্তার হওয়া মিলন সেখ বলেন, তিনি এখন অনুতপ্ত। তার কারণে পরিবার পরিজনের দূর্ভোগের সিমা নেই। তাই এখন থেকে মাদক আর তিনি ধরবেন না এবং এ মামলায় আদালতের দেয়া রায় মেনে শাস্তি ভোগ করে সুন্দর জীবনে ফিরে আসবে।

(Visited 213 times, 1 visits today)