ঢাকাSunday , 7 August 2022

বঙ্গমাতা’র ৯২ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এমপি কাজী কেরামত আলীর বাণী

Link Copied!

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর সহধর্মিণী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মা বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এঁর ৯২ তম জন্মদিন। ১৯৩০ সালের ৮ আগস্ট গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এই মহীয়সী নারী। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কাল রাতে নিষ্ঠুর, বর্বরোচিত হত্যা যজ্ঞের শিকার হয়ে তিনি শাহাদত বরণ করেন। সে সময় তার বয়স ছিল মাত্র ৪৫ বছর। বাল্য কাল থেকে যে মানুষটিকে জীবন সঙ্গী করে আমৃত্যু সাহচর্যের পণ করেছিলেন তিনি বিদায়ও নিলেন তার সঙ্গে। আমৃত্যু মানবিক ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এঁর ডাক নাম ছিল রেনু।

সারাজীবন চলেছেন সাধা সিধে ভাবে। নিজের চেয়ে পরিবারের কথা ভেবেছেন বেশি। বঙ্গবন্ধুর জীবনসঙ্গী হিসেবে সংগঠনের, দেশ ও জাতির কথাও ভাবতে হয়েছে তাঁকে। ছোট বেলায় বাবা-মাকে হারিয়ে স্বজনদের সঙ্গে বেড়ে ওঠেন তিনি। মাত্র ৩ বছর বয়সে বাবা শেখ জহুরুল হক ও ৫ বছর বয়সে মা হোসনে আরা বেগম পৃথিবী থেকে চির বিদায় নেন। গোপালগঞ্জ মিশন স্কুলে পড়ার সময় দাদা শেখ কাসেম চাচাতো ভাই শেখ লুৎফর রহমানের ছেলে শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে ফজিলাতুন্নেছার বিয়ে দেন। বিয়ের পর সামাজিক রীতিনীতির কারণে স্কুলের বদলে গৃহশিক্ষকের কাছে লেখা পড়া করেন তিনি। জীবদ্দশায় স্বামী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নানা পরামর্শ ও নির্দেশনা দিয়ে লড়াই-সংগ্রামের প্রেরণা জুগিয়েছেন।

বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধসহ তৎকালীন সব সংগ্রামে তিনি গণমানুষের পক্ষে অবস্থান নিয়ে সব কষ্ট সহ্য করেছেন। বঙ্গবন্ধুর সংগ্রাম ময় জীবনে তিনি যেমন পরিবারের হাল ধরে ছিলেন পরম মমতায়, তেমনি সাংগঠনিক দায়িত্বও পালন করেছেন যথেষ্ট সাহসিকতার সঙ্গে। বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে মহীয়সী ফজিলাতুন্নেছা মুজিব দিকনির্দেশনা দিয়ে দলীয় নেতা কর্মী ও অনুসারীদের সাহস জোগাতেন। কারা বন্দি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ ও নির্দেশনা নেতাকর্মীদের জানাতেন। ১৫ আগস্ট বুলেটের সামনে দাঁড়িয়েও বিন্দুমাত্র বিচলিত না হয়ে হত্যাকারীদের এই জঘন্য কর্মকান্ডের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বীরদর্পে। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, বঙ্গবন্ধুর সব সাহসী পদযাত্রায় বেগম মুজিব ছিলেন সক্রিয় সহযাত্রী। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এঁর জীবনাদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে আমি সকলকে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার কাজে অংশগ্রহণের আহবান জানাই।

জয়বাংলা, বাংলাদেশ চিরজীবী হউক। শুভ জন্মদিন, বঙ্গমাতা।

কাজী কেরামত আলী
সাবেক শিক্ষাপ্রতিমন্ত্রী ও জাতীয় সংসদ সদস্য রাজবাড়ী-১ আসন।

(Visited 22 times, 1 visits today)