৩ আগষ্ট রাজবাড়ীর নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করবেন উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম : 

রাজবাড়ী জেলা শহর রক্ষায় স্থায়ী ভাবে পদ্মা নদীর তীর সংরক্ষণ প্রকল্পের কাজ শেষ হবার একমাস পরেই দ্বিতীয় বারের মত ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এতে হুমকির মধ্যে পড়ে গেছে শহর রক্ষা বেড়ি বাঁধ। ফলে আতংকিত এখন শহরবাসী। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে বৃহস্পতিবার দুপুরে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম এমপি’র সাথে সাক্ষাৎ করেছেন, সাবেক শিক্ষাপ্রতিমন্ত্রী ও রাজবাড়ী-১ আসনের এমপি কাজী কেরামত আলী এবং ফরিদপুরের সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি সালমা চৌধুরী রুমা।


উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীমের সাথে সাক্ষাৎ শেষে এমপি কাজী কেরামত আলী রাজবাড়ী বার্তা ডট কমকে  জানিয়েছেন, পদ্মা নদীর ভাঙ্গণে রাজবাড়ী বাসী আতংকিত। ভাঙ্গন শহর রক্ষা বেড়ি বাঁধ ছুই ছুই অবস্থা। নদী তীর রক্ষায় সাম্প্রতিক সময়ে যে কাজ করা হয়েছে তা মানসম্মত হয়নি। যে কারণে স্রোতের তোরে সিসি ব্লকসহ দেবে যাওয়া শুরু করেছে। এমতাবস্থায় রাজবাড়ী জেলা শহরকে বাঁচাতে জরুরী পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন। ফলে তিনি উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামিমকে রাজবাড়ীর নদীভাঙ্গন অবস্থা সরজমিনে দেখে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আহবান জানান। তার আহবানে সারা দিয়ে উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামিম আগামী ৩ আগষ্ট টুঙ্গিপাড়া সফর শেষে ঢাকা ফেরার পথে রাজবাড়ীর গোদার বাজারের ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করবেন। তার সফর শেষে স্থায়ী নদীর তীর রক্ষায় প্রয়োজনীয় কার্যক্রম নেয়া সম্ভব হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
তিনি আরো জানিয়েছেন, উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীমের সাথে সাক্ষাতের এক পর্যায়ে ফরিদপুরের সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি সালমা চৌধুরী রুমা সেখানে আসেন এবং রুমা চৌধুরীও ভাঙ্গন প্রতিরোধের জন্য উপমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন। ওই সময় পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের ডিজি ইঞ্জিনিয়ার ফজলুল রশিদসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।


জানাগেছে, এর আগে গত ১৬ জুলাই রাজবাড়ী শহর রক্ষা বাধেঁর ৩০ মিটার এলাকা ভেঙ্গে যায়। গত মঙ্গলবার সন্ধার পরে শহরের গোদার বাজার এলাকায় ২০০ মিটার কংক্রিটের সিসি ব্লক বিলিন হয়ে যায়। খবর শুনে ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তারা।
রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানা যায়, রাজবাড়ী শহর রক্ষায় পদ্মা নদীর তীর স্থায়ী ভাবে সংরক্ষণ কাজ হয়েছে ৭ কিলোমিটার এলাকায়। ২০১৮ সালে শুরু হওয়া শহর রক্ষা প্রকল্পের কাজ শেষ হয় চলতি বছরের ৩১ মে। যার ব্যয় হয়েছে ৩৭৬ কোটি টাকা। কাজটির ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ছিল খুলনা শিপ ইয়ার্ড।
রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবদুল আহাদ জানিয়েছেন, ধ্বসে যাওয়া এলাকায় নদীর ¯্রােত বেশি। কাজের ডিজাইন থেকেও এখানে বেশি কাজ করা প্রয়োজন। এ জন্য আমরা আরো ৫ কোটি টাকা অতিরিক্ত বরাদ্দ চেয়ে চিঠি দিয়েছি।

(Visited 170 times, 1 visits today)