রাজবাড়ীর ৬ জলন্ত ইটভাটা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিলো পরিবেশ অধিদপ্তর –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম : 

রাজবাড়ী পৌরসভা, কালুখালী এবং পাংশা উপজেলা এলাকায় অবৈধভাবে গড়ে উঠা ৬টি জলন্ত ইটভাটা গুড়িয়ে দিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তর।


পরিবেশ অধিদপ্তর ফরিদপুরের উপ-পরিচালক এএইচএম রাশেদ জানান, পরিবেশ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ সাদেকুর রহমান সবুজের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকালে পর্যন্ত ভ্রাম্যমান পরিচালনা করা হয়।

এ সময় লাইসেন্স, পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়াপত্রসহ অন্যান্য কাগজপত্র না থাকার দায়ে রাজবাড়ী পৌরসভার জেডআইডি, এনআইডি’র দুই টাকা ও সরদার ব্রাদার্স এন্ড ব্রিক্স এবং কালুখালী উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের শ্যামসুন্দরপুর গ্রামের আরএম ব্রিক্স ও পাংশার যশাই ইউনিয়নের তলাগিলা গ্রামের কেএন্ডবি ব্রিক্স ইটভাটার চিমনিসহ পুরো ভাটা গুড়য়ে দেয়া হয়। এ অভিযানে র‌্যাব, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা অংশ গ্রহণ করে।
বৃহস্পতিবার সকালে রাজবাড়ী শহরের নতুন বাজার এলাকার জেলা কারাগার সংলগ্ন জেবিআই, এনআইবি ও এস বিবি ইটভাটায় অভিযান চালায় পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এ সময় অভিযানে সহযোগিতা করেন ফরিদপুর র‌্যাব- ৮ ও থানার পুলিশ সদস্যরা।


পড়ে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার মাধ্যমে কোন ধরনের বৈধতা না থাকায় ওই তিন ইটভাটাকে গুড়িয়ে দেওয়া হয়।


পরিবেশ অধিদপ্তর ফরিদপুরের উপ-পরিচালক এ এইচ এম রাসেদ জানান, রাজবাড়ীতে বেশ কয়েকটি অবৈধ ইটভাটা আছে যা এতদিন প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে অবৈধ ভাবে ইট পোড়ানোর কার্যক্রম চালিয়ে আসছিলো। যে কারণে অবৈধ ইটভাটায় অভিযান চালানো হয়। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান।
অভিযানে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাদিকুর রহমান সবুজ সহ র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা ।

রাজবাড়ী জেলার সদর, কালুখালীও পাংশা উপজেলায় সাত টি অবৈধ ইটভাটা ভাঙ্গাসহ মোট নয় টি অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে দশ লক্ষ টাকা জরিমানা আদায়।
আজ ২১ জানুয়ারি ২০২১ খ্রিঃ তারিখ বৃহস্পতিবার পরিবেশ অধিদপ্তর, সদর দপ্তরের বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ এর নেতৃত্বে এবং পরিবেশ অধিদপ্তর, ফরিদপুর জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক জনাব এ, এইচ, এম, রাসেদ ও মেজর মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, কোম্পানী কমান্ডার, ফরিদপুর র‌্যাব ক্যাম্প, র‌্যাব-৮ এর উপস্থিতিতে রাজবাড়ী জেলার সদর, কালুখালী ও পাংশা উপজেলায় অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। এসময় নয় টি অবৈধ ইটভাটায় অভিযান চালিয়ে মোট দশ লক্ষ টাকা জরিমানা ধার্যপূর্বক আদায় করা হয় এবং একইসাথে ৭ (সাত) টি অবৈধ ইটভাটা এক্সেভেটর দিয়েভাঙ্গা হয় ও কাঁচা ইট নষ্ট করা হয় এবং ইটভাটার আগুন ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতায় পানি দিয়ে নিভানো হয়। মোবাইল কোর্টে প্রসিকিউশন প্রদান করেন পরিবেশ অধিদপ্তর, ফরিদপুর জেলা কার্যালয়ের পরিদর্শক জনাব মনিরুজ্জামান শেখ। মোবাইল কোর্টে আরো উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর, ফরিদপুর জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক জনাব কাজী সাইফুদ্দিন ও কর্মচারীবৃন্দ। মোবাইল কোর্টে ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) (সংশোধন) আইন ২০১৯ লঙ্ঘনের দায়ে নি¤œলিখিত নয় টি ইটভাটার বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্র্ট পরিচালিত হয়:
ক) জেড বি আই ব্রিকস্, স্বত্বাধিকারী: আকতারুজ্জামান হাসান, ভবানীপুর, সদর, রাজবাড়ী। ১২০ ফিট চিমনিরঅবৈধ ইটভাটাটির চিমনি, কিলন এক্সেভেটর দিয়ে ভাঙ্গা হয় ও কাঁচা ইট নষ্ট করা হয় এবং ইটভাটার আগুন ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতায় পানি দিয়ে নিভানো হয়।
খ) মেসার্স নুরুল ইসলাম এন্ড ব্রাদার্স, স্বত্বাধিকারী: মোঃ নুরুল ইসলাম, বেড়াডাঙ্গা ২নং সড়ক, সদর, রাজাবাড়ী। ১২০ ফিট চিমনির অবৈধ ইটভাটাটির চিমনি, কিলন এক্সেভেটর দিয়ে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয় ও কাঁচা ইট নষ্ট করা হয় এবং ইটভাটার আগুন ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতায় পানি দিয়ে নিভানো হয়।
গ) মেসার্স নুরুল ইসলাম এন্ড ব্রাদার্স, স্বত্বাধিকারী: মোঃ নুরুল ইসলাম, বেড়াডাঙ্গা ২নং সড়ক, সদর, রাজাবাড়ী। অবৈধ জিগজ্যাগ ইটভাটাটির কিলনের কিছু অংশ এক্সেভেটর দিয়ে ভেঙ্গে দেয়া হয়।
ঘ) সরদার ব্রাদার্স এন্ড ব্রিকস্, স্বত্বাধিকারী: আফসার আলী সরদার, চরলক্ষীপুর, সদর, রাজবাড়ী। ১২০ ফিট চিমনির অবৈধ ইটভাটাটির চিমনির অংশ ও কিলন এক্সেভেটর দিয়ে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয় এবং কাঁচা ইট নষ্ট করা হয়।
ঙ) আর এম ব্রিকস্, স্বত্বাধিকারী: মোঃ রইচ উদ্দিন মিয়া, শ্যামসুন্দরপুর, বোয়ালিয়া, কালুখালী, রাজবাড়ী। ১২০ ফিট চিমনির অবৈধ ইটভাটাটির চিমনি, কিলন এক্সেভেটর দিয়ে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয় ও কাঁচা ইট নষ্ট করা হয় এবং ইটভাটার আগুন ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতায় পানি দিয়ে নিভানো হয়।
চ) মেসার্স কে এন্ড বি ব্রিকস্, স্বত্বাধিকারী: মোঃ মাসুম উদ্দিন খান, দলাগিলা, পাংশা, রাজবাড়ী। জরিমানার পরিমান ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) টাকা। এছাড়া ইটভাটাটির কিলন এক্সেভেটর দিয়ে ভাঙ্গা হয়।
ছ) মেসার্স কে এন্ড এম ব্রিকস্, স্বত্বাধিকারী: মোঃ নাসির উদ্দিন খান,দলাগিলা, পাংশা, রাজবাড়ী। জরিমানার পরিমান ৪,০০,০০০/- (চার লক্ষ) টাকা।
জ) আর এন্ড বি ব্রিকস্, স্বত্বাধিকারী: বাদশা আলম, চরমোদীপুর, পাংশা, রাজবাড়ী। জরিমানার পরিমান ৩,০০,০০০/- (তিন লক্ষ) টাকা।এছাড়া ইটভাটাটির কিলন এক্সেভেটর দিয়ে ভাঙ্গা হয়।
ঝ) মেসার্স ওয়াই আই জেড ব্রিকস্, ম্যানেজার: জয়দেব কুমার দাস, পুরাতন বাজার যশাই সংলগ্ন, পাংশা, রাজবাড়ী। জরিমানার পরিমান ২,০০,০০০/- (দুই লক্ষ) টাকা।
উল্লিখিত ০৯ (নয়) টি ইটভাটায় ১০,০০,০০০/- (দশ লক্ষ) টাকা জরিমানা ধার্যপূর্বক আদায় করা হয় এবং ০৭ (সাত) টি ইটভাটা ভেঙ্গে ধ্বংস করা হয়।
এসময় পরিবেশ অধিদপ্তর, ফরিদপুর জেলা কার্যালয় কর্তৃক ইটভাটার সকল কার্যক্রম বন্ধ রাখার আদেশ প্রদান করা হয়। মোবাইল কোর্টে উপস্থিত থেকে সহযোগিতা করে র‌্যাব-৮ এর একটি টীম ও ফায়ার সার্ভিসের একটি টীম এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যবৃন্দ।
উল্লেখ্য, গত ১৯/০১/২০২১ খ্রিঃ ও ২০/০১/২০২১ খ্রিঃ এবং আজ ২১/০১/২০২১ খ্রিঃ তারিখতিনদিনেফরিদপুর ও রাজবাড়ী জেলায় ১১টি অবৈধ ইটভাটা ভাঙ্গাসহ মোট ২২টি অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৪৬,৫০,০০০/- (ছেচল্লিশ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
ভবিষ্যতেও অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে এ ধরণের মোবাইল কোর্ট পরিচালনা অব্যাহত থাকবে।

(Visited 1,797 times, 1 visits today)