রাজবাড়ীতে বাড়ছে চালের দাম : খুচরা বিক্রেতারা দুষছেন মিলারদের –


রুবেলুর রহমান, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

হঠাৎ করে অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে রাজবাড়ীর চালের বাজার। এতে বিপাকে পড়েছেন ক্ষেটে খাওয়া নিম্নআয়ের মানুষ। গত এক সপ্তাহে প্রকারভেদে রাজবাড়ীতে চালের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে কেজিতে ৩ থেকে ৭ টাকা পর্যন্ত।
এদিকে চালের বাজার বৃদ্ধির জন্য মিল মালিকদের দায়ী করছেন রাজবাড়ী চাল ব্যবসায়ীরা এবং ক্রেতারা বলছেন দাম বেশি হওয়ায় কম চাল কিনছেন।


চাল সাংসারিক দৈনন্দিন জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। সাধারন ক্ষেটে খাওয়া নিম্নআয়ের মানুষসহ প্রায় সব পরিবারে চাল অপরিহার্য। কিন্তু রবি মৌসমেও চালের দাম বৃদ্ধিতে হতাশ ক্রেতা ও ব্যবসায়ীরা। এদিকে চালের দাম বৃদ্ধি পাওয়া ক্রেতার যেমন চাল কম কিনছেন, তেমনি ব্যবসায়ীদেরও বিক্রি হচ্ছে কম।


জানাগেছে, রাজবাড়ীর চাল ব্যবসায়ীরা রংপুরসহ দেশের বিভিন্নস্থান থেকে চাল আমাদানি করে। বর্তমানে সেখানে দাম বৃদ্ধির কারণে রাজবাড়ীতে চালের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। যেমন বাসমতি ৫৮ থেকে ৬২, মিনিকেট ৫২ থেকে ৫৪, কাজল লতা ৫০, নাজির শাইল ৫৪ থেকে ৫৬, আটাশ ৪৮, উনত্রিশ ৪৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। যা গত সপ্তাহে ছিল কেজিতে ৩ থেকে ৭ টাকা কম।
ক্রেতারা বলেন, চালের দাম বেশি হওয়ায় তাদের মত খেটে খাওয়া মানুষের খুব সমস্যা হচ্ছে। সারাদিন কাজ করে যে টাকা পান, সে টাকা দিয়ে কিছুই হয় না। চালসহ সব কিছুর দাম বেশি। দাম একটু কম হলে তারাও একটু বেশি চাল কিনতে পারতেন। পরিবারের সদস্য সংখ্যা বেশি হওয়ায় চালও বেশি প্রয়োজন। কিন্তু দাম বেশির কারণে কম কিনতে হচ্ছে।
খুচরা বিক্রেতারা বলেন, চালের দাম বেশি হওয়ায় তাদেরও সমস্যা। ক্রেতারা বেশি দামে চাল কিনতে চায় না। বিভিন্ন কথাবার্তা বলে। মোকামে কাম বেশি হওয়ায় কেজিতে ৩ থেকে ৪ টাকা বৃদ্ধি হয়েছে। এখন যে ভাবে তারা কিনছেন, সেভাবেই বিক্রি করছেন।


রাজবাড়ী চাল বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক কাজী বেনজির আহম্মেদ বলেন, মুলত অটোরাইস মিলের মালিকরা লাভ উপভোগ করছে এবং মধ্যসদ্ধভোগী ও ব্যবসায়ীরাও কোন কিছু পাচ্ছে না। গত দুই সপ্তাহে রাজবাড়ীতে চালের দাম প্রায় ৬ থেকে ৭ টাকা কেজি প্রতি বৃদ্ধি পেয়েছে। বিক্রিও কমে গেছে। ক্রেতারা একাধিক দোকান ঘুরে চাল কিনছেন।

(Visited 41 times, 1 visits today)