বালিয়াকান্দিতে গ্রাহকদের অর্থ হাতিয়ে তালা ঝুলিয়ে লাপাত্তা ভূয়া এনজিও এসকেএস –

সোহেল রানা, রাজবাড়ী বার্তা :

আত্ন কর্মসংস্থায় সেবামুলক প্রতিষ্ঠান এসকেএস নামক এনজিও রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি শহরের তালপট্রি মাদ্রাসা সংলগ্ন এলাকায় অফিস ভাড়া নিয়ে ঋন প্রদানের আশ্বাসে গ্রাহকদের অর্থ হাতিয়ে অফিসে তালা ঝুলিয়ে পালিয়েছে।


মঙ্গলবার বিকাল ৩টার দিকে বালিয়াকান্দি শহরের তালপট্রি মাদ্রাসা সংলগ্ন মানিক মিয়ার বাড়ীতে গিয়ে দেখাযায়, প্রায় শতাধিক নারী-পুরুষ অপেক্ষা করছে। ওই বাড়ীতে এসকেএস নামে একটি সাইন বোর্ড ঝুলছে। অফিসের দরজায় ঝুলছে তালা।
বাড়ীর মালিক মানিক মিয়া বলেন, গত এক সপ্তাহ আগে ৩০ হাজার টাকা সিকিউরিটি ও মাসে সাড়ে ৬হাজার টাকায় ভাড়া প্রদান করা হয়। মঙ্গলবার চুক্তিপত্র সম্পাদন করার কথা ছিল। এখন দেখছি বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে জড়ো হচ্ছে। কিন্তু তাদের নাম বা আমার কাছে কোন ঠিকানা নেই।


টাকা দিয়ে প্রতারিত গ্রাহক উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের ঘোড়ামারা গ্রামের গফফার শেখের নিকট থেকে ৭হাজার টাকা, শহিদুল ইসলামের নিকট থেকে ৭হাজার ১শত টাকা, আলমের নিকট থেকে ৫হাজার ১শত টাকা, ইয়াসমিনের নিকট থেকে ৭হাজার ১শত টাকা, সালমার নিকট থেকে ৪ হাজার ১শত টাকা, বিনার নিকট থেকে ৭হাজার ১শত টাকা, রশিদের ৫হাজার ২শত টাকা, হালিমের ২হাজার ২শত টাকা, বহরপুর ইউনিয়নের নতুনচর গ্রামের রুপবানের নিকট থেকে ৭হাজার ২শত টাকা, রাশিদার নিকট থেকে ৭হাজার ২শত টাকা, নারুয়া ইউনিয়নের গাড়াকোলা গ্রামের রহিম শেখের নিকট থেকে ৬হাজার ৯শত টাকাসহ নারুয়া, ঘোড়ামারা, সদাশিপুর, চরফরিদপুর, নতুনচর, ইন্দুরদীসহ বিভিন্ন গ্রামের মানুষের কাছ থেকে কোন প্রকার বই ছাড়াই টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।
গফফার, শহিদুল, আলম, ইয়াসমিনসহ অনেকেই জানান, প্রায় এক সপ্তাহ ধরে সদস্য সংগ্রহ করছেন। সুন্দর ভাবে কথা বলে মঙ্গলবার সকালে আমাদের নিকট থেকে টাকা নিয়ে দুপুর ২টার পর অফিসে ঋন নিতে আসতে বলে। আমরা অফিসে এসে দেখতে পাই তালা ঝুলছে। মনে করেছি বাইরে আছে আসবে। অপেক্ষা করতে থাকলে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন আসতে থাকে। তখন আমরা বুঝতে পেরেছি প্রতারনার শিকার হয়েছি।


বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আম্বিয়া সুলতানা বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই, আপনার কাছ থেকে জানতে পারলাম। প্রতারিতদেরকে থানায় অভিযোগ দিতে বলেন।

(Visited 78 times, 1 visits today)