মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কুটক্তি করায় রাজবাড়ীর সৌখিন সাংবাদিক রবিউল গ্রেপ্তার –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কুটক্তি করায় রবিউল ইসলাম খন্দকার মজনু নামে রাজবাড়ীর সৌখিন এক সাংবাদিককে আজ শনিবার দুপুরে জেলা গোয়েন্দা শাখার সদস্যরা গ্রেপ্তার করেছে। রবিউল জেলা শহরের বিনোদপুর পুলিশ ফাঁড়ি এলাকার রোস্তম আলী খন্দকারের ছেলে। তার রাজবাড়ী বাজারের হাজি সুপার মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় মোবাইল সার্ভিসিং-এর দোকান রয়েছে। এর আগে গত শুক্রবার সন্ধ্যা রাতে রবিউল ইসলাম খন্দকারের বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলাটি দায়ের করেছেন, রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ন-আহবায়ক আজিজুল ইসলাম মন্ডল।


মামলায় বলা হয়েছে, গত ৬ অক্টোবর দুপুর ১ টা ১৩ মিনিটে রবিউল ইসলাম খন্দকার তার ফেসবুক আইডিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে কুটক্তি মূলক পোষ্ট প্রদান করে। যা পরবর্তীতে বাদীর নজরে আসে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুনাম ক্ষুন্ন করা এবং আইনশৃঙ্খলা বিঘœ ঘটানোর জন্য এই ধরনের মিথ্যা ও মানহানিকর তথ্য ফেসবুকে প্রচার করেছে। এতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও তার অংশ সংগঠনের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে বিষয়টি নিয়ে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হচ্ছে এবং দলীয় লোকজন ক্ষোভে ফেটে পরেছে। ফলে বিষয়টি নিয়ে আইনশৃঙ্খলার অবনতি হবার সম্ভাবনা রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য আসামি রবিউল ইসলাম খন্দকার প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মিথ্যা ও মানহানিকর তথ্য ফেসবুকে প্রচার করেছে। যে কারণে তিনি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানোর পাশাপাশি থানায় মামলা দায়ের করেছেন।


রাজবাড়ী থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কুটক্তি করার অভিযোগ দায়ের হওয়া মামলার আসামি হিসেবে রবিউল ইসলাম খন্দকারকে গ্রেপ্তার এবং তার মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। রবিউলের বিরুদ্ধে গত ২৩ সেপ্টেম্বর জেলা কালুখালী উপজেলার মদাপুর ইউনিয়নের নারী সদস্য ও একই ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি ফাতেমা বেগম রাজধানী ঢাকার বিজ্ঞ সাইবার ট্রাইব্যুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পৃথক আরেকটি মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলাটি তদন্ত করছে পিবিআই। এছাড়া জেলার দৌলতদিয়া ঘাটে বিআইডব্লিউটিসির কর্মচারীদের মারপিটের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার আসামি সোহেল রানা চৌধুরীকে জামিনে মুক্ত করতে গত ২৭ সেপ্টেম্বর আদালতে মিথ্যা প্রত্যয়নপত্র প্রদান করেন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি রবিউল। ওই প্রত্যয়নপত্রে সোহেল রানা সিএনএন বাংলা টিভির রাজবাড়ী জেলা প্রতিনিধি এবং সিএনএন বাংলা টিভি একটি বেসরকারী স্যাটালাইট টেলিভিশন হিসেবে উল্লেখ করেছে। মূলত সিএনএন বাংলা টিভি বেসরকারী স্যাটালাইট টেলিভিশন নয়।


উল্লেখ্য, কিছু দিন পূর্বে রবিউল ইসলাম খন্দকার তার ফোসবুক আইডিতে নিজেকে সৌখিন সাংবাদিক হিসেবে উপস্থাপন করেছেন এবং মোবাইল সার্ভিসিং তার প্রধান পেশা হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

(Visited 1,880 times, 6 visits today)