কালুখালীর রবিউল হত্যা: প্রধান ২ আসামি রফিক ও ইলা গ্রেপ্তার, ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

রাজবাড়ীর কালুখালীর বেতবাড়িয়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত আছিরুদ্দিন বিশ্বাসের ছেলে রবিউল বিশ্বাসকে পরিকল্পিত ভাবে বিলের পানিতে চুবিয়ে হত্যার চাঞ্চল্যকর ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার প্রধান দুই আসামি মোঃ রফিক মোল্লা ও ইলিয়াস ওরফে ইলাকে জেলা গোয়েন্দা শাখার সদস্যরা গ্রেপ্তার করেছে।

ওই হত্যার ঘটনার প্রায় এক মাস পর গত শুক্রবার রাতে রাজধানী ঢাকা এ্যালিফেন্ট রোড এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার হওয়া এজাহার ভুক্ত ১ নং আসামী রফিক (৪০) জেলার কালুখালীর বেতবাড়িয়া গ্রামের আলী আহম্মেদ মোল্লার ছেলে এবং এজাহার ভুক্ত ২ নং আসামী ইলিয়াস ওরফে ইলা (২৬) একই গ্রামের আজিজুল মোল্লার ছেলে। তাদের দুজনের বিরুদ্ধে দশ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে শনিবার বিকালে আদালতে পাঠানো হয়েছে।


রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি ওমর শরীফ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাজধানী ঢাকা এ্যালিফেন্ট রোড এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। ইতোপূর্বে ওই হত্যা মামলায় মাঝবাড়ী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড সদস্য ও মোহনপুর গ্রামের বাসিন্দা ইউসুফ হোসেনের ছেলে সোহেল ও রাসেল, এজারহারভুক্ত অপর আসামি ও বেতবাড়িয়া গ্রামের রাজ্জাক মন্ডলের ছেলে রাকিব মন্ডল এবং সন্দেহ জনক আসামি ইদ্রিস প্রমাণিককে গ্রেপ্তার করা হয়। রাকিব ও ইদ্রিস আদালতে ১৬৪ ধারায় পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে স্বাকারোক্তি মূলক জবানবন্দির মাধ্যমে প্রদান করেছে। সেই সাথে ওই হত্যাকান্ডের ঘটনার সাথে জড়িত পরিকল্পনাকারীদেরও নাম প্রকাশ করেছে। বর্তমানে সোহেল ও রাসেল পুলিশের উপর হামলার অপর মামলায় এবং অন্যান্য আসামিরা রবিউল হত্যা মামলায় কারাগারে রয়েছেন।


উল্লেখ্য, গত ১৫ আগষ্ট রাতে রাজবাড়ীর কালুখালীর বেতবাড়িয়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত আছিরুদ্দিন বিশ^াসের ছেলে ও মুদি ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম বিশ^াস (৩৫) কে তার বাড়ীর অদুরে একটি বিলের পানির মধ্যে চুবিয়ে হত্যা করে দূর্বৃত্তরা। এ ঘটনার নিহতের স্ত্রী মোছাঃ সাবানা আক্তার বাদী হয়ে ৫ জনকে চিহ্নিত করে কালুখালী থানায় এ হত্যা মামলা দায়ের করে। এ মামলায় পুলিশ এজাহার ভুক্ত রাকিব মন্ডল, সহ তিনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অপরদিকে, রবিউল হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসী জেলার কালুখালী থানার এসআই ফজলুল হকসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে আটকে রেখে মারপিট কার ঘটনায় কালুখালী থানার এসআই সোহাগ সাহা বাদী হয়ে ২৯০ থেকে ৩০০ জন অজ্ঞাত আসামির বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা দায়ের করেছেন। যে মামলা দু’টি জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই ফেরদোস আহম্মেদ তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে নিযুক্ত হয়েছেন।

(Visited 127 times, 1 visits today)