বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ দখল দিয়ে দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনায় পাল্টা-পাল্টি মামলা –

ইমরান হোসেন মনিম, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

রাজবাড়ী জেলা সদরের শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের গোয়ালন্দ মোড়ে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ দখল করাকে কেন্দ্র করে আয়োজিত সমঝেতা বৈঠকে উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে রাজবাড়ী থানায় পাল্টা-পাল্টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।


মোঃ আলম খানের দায়ের করা মামলায় আহলাদীপুরের ১ নং অভিযুক্ত মোঃ ফরিদ শেখ, ২ নং মোঃ বাবু শেখ, ৩ নং মোস্তফা মেম্বার, মোঃ সোহেল মিজি, মোঃ শহিদ খান, মোঃ সুমন শেখ, কামাল পাটোয়ারী, রবিউল পাটোয়ারী, মো ঃ জাকির পাটোয়ারী, রুবেল মন্ডল, মোঃ জুয়েল, আজিজ খন্দকার, মিঠু মিজি, হিমু খান সহ আরো অজ্ঞাত ২০/২৫ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।


মামলার বাদী মোঃ আলম খান জানান, তার ভাই শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের সাবেক সাধারন সম্পাদক মোঃ শাহীন খানের সাথে সামাজিক ও রাজনৈতিক বিরোধ চলছিল। এরই জেরে এজাহারে উল্লেখিত অভিযুক্ত আসামিরা তার ভাই মোঃ শাহীন খান সহ তার অনুসারী ও পরিবারের লোকজনদের খুন ও যখম করার সুযোগ খুজতে থাকে।


গত মঙ্গলবার বিকাল ৫ টার দিকে এই বিরোধের মিমাংসা করতে খানখানাপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ গোয়ালন্দ মোড়ে রাচ্চু খানের মালিকানাধীন আজিজ খান সুপার মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় দুই পক্ষকে ডেকে সমঝোতার জন্য বৈঠকের ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু বৈঠক শেষে মিমাংসায় উভয় পক্ষ সম্মত না হওয়ায়। এসময় এজাহারে অভিযুক্ত ১ নং আসামী ২ নং আসামীকে বিরোধী পক্ষকে আঘাত করতে হুকুম দেয়। এক পর্যায়ে সেখানে মোস্তফা মেম্বার সহ তার সঙ্গীরা দেশীয় অস্ত্র, লাঠি ,রামদা ,বাটাম সহ বিভিন্ন সরঞ্জাম দিয়ে শাহীন খানকে মেরে ফেলার উদ্দেশে কোপানো ও এলাপাথারী আঘাত করতে থাকে। এ সময় শাহীন খানের পক্ষের ৫/৬ জন যখম হয়। আহতদের মাথা,পিঠে পায়ে ,হাতে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতর চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় মোঃ শাহীন খান আহত হয়, মারাত্বক যখম হয়,রাকিব খান,আসিব খান,হাবিব খান,মিতুল সোহাগ বেপারী খালেক সরদার সহ আরো ১০/১২ জন আহত হয়। আহতরা সবাই ফরিদপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহন করে বাড়ি ফিরেছে। বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের আসবাব পত্র, চেয়ার টেবিল, ভাংচুর করে প্রায় ৪০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। এ সময় শাহীন খানের চিৎকার গোল শুনে আশপাশের মানুষ ছুটে আসলে আসামীরা প্রান নাশের হুমকি দিয়ে স্থান ত্যাগ করে। এবং যেতে যেতে বলে এ বিষয়ে মামলা করিলে তাদেও বাড়ি ঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হবে এবং সবাইকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির হুমকি দেওয়া হয়।


বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের সভাপতি শাহীন খান জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ অফিসটি আগে শহীদওহাবপুর ইউনয়ন আওয়ামীলীগের অফিস ছিল। এবং এই অফিসটি তিনি তার নিজের অর্থে ও নিজের নামে জমি লিজ নিয়ে করেছিলেন। এই অফিসকেই কেন্দ্র করে চলমান বিরোধের জের ধরে গত মঙ্গলবার মিমাংসার বসেছিলেন দু’পক্ষ। তবে দু পক্ষের মধ্যে কোন বিষয়ে সুরাহা না হওয়ায় তর্ক বিতর্ক শুরু হয়। মারপিটের ঘটনা ও ভাংচুর করে এজাহারে উল্লেখিত নামের আসামীরা। গত বছরের নভেম্বর মাসে ইউনয়ন আওয়ামীলীদের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। প্রকৃত পক্ষে সে সময় থেকেই সাবেক এইনয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহীন খান ও বর্তমান সাধারন সম্পাদক মোঃ মোস্তফা’র মধ্যে বিরোধ শুরু হয়। তবে এ ঘটনার সময় খানখানাপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের অফিসার ইনচার্জ উপস্থিত থাকার পরও কিভাবে সেখানে এ্যাত বড় ঘটনা ঘটল সেটা বুঝতে পারছেন না তিনি।

এদিকে, অপরগ্রুপের আহত আসিফের ভাই রাজিব বাদী হয়ে ১৩ জনকে চিহ্নিত করে এবং ৭/৮ জনকে আসামি করে রাজবাড়ী থানায় আরো একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ গ্রুপের ২ জনের অবস্থা আশংকা জনক। তাদের রাজবাড়ী ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়েছে।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা স্বপন কুমার মজুমদার জানান, এ ঘটনায় উভয় পক্ষই রাজবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মামলা দুটি তদন্ত করছেন, খানখানাপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ শহিদুল ইসলাম।

(Visited 921 times, 1 visits today)