কামাল লোহানীর স্মরণে রাজবাড়ীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আলোক প্রজ্বলন –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানীর স্মরণে রাজবাড়ীতে আলোক প্রজ্বলন করা হয়েছে।আজ শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রাজবাড়ীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে কামাল লোহানীর শুভাকাংখিরা এ কর্মসূচী পালন করে।


সে সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা শহরের সজ্জকান্দা গ্রামের নুরজাহার বেগম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান বাবু ওরফে বাবলা চৌধুরী, নুরজাহার বেগম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শাখিয়া বেগম, রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সহসম্পাদক ও রাজবাড়ী বার্তা ডট সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, সমকালের রাজবাড়ী জেলা প্রতিনিধি সৌমিত্র শীল চন্দন, মূল উদ্যোগতা আহনাফ হাসান রবিন, দৈনিক কালের কণ্ঠ শুভসংঘ রাজবাড়ী জেলা শাখার সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কাওসার আহম্মেদ রিপন প্রমুখ। পরে কামাল লোহানীর স্মরণে একমিনিট নিরবতা পাল করা হয়।


উল্লেখ্য, ২০ জুন রাজধানীর মহাখালীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে কামাল লোহানী মারা যান। পরে তাকে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় গ্রামের বাড়িতে পারিবারিক কবরস্থানে মায়ের কবরে তাকে সমাহিত করা হবে।

কামাল লোহানীর সংক্ষিপ্ত জীবনী

কামাল লোহানী নামে পরিচিত থাকলেও তার আসল নাম আবু নাইম মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল খান লোহানী। ১৯৩৪ সালে সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়ার খান মনতলা গ্রামে তার জন্ম হয়। ১৯৫২ সালে পাবনা জিলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক পাস করেন। পরে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন পাবনা এডওয়ার্ড কলেজ থেকে।
১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের সময় তিনি পাবনা জেলা স্কুলে শেষ বর্ষের ছাত্র। ওই আন্দোলনে যুক্ত হওয়ার মধ্য দিয়েই রাজনীতির হাতেখড়ি। ১৯৫৩ সালে নূরুল আমিনসহ মুসলিম লীগ নেতাদের পাবনা আগমন প্রতিরোধ করতে গিয়ে তাকে জেলেও যেতে হয়। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর আবার ১৯৫৪ সালে গ্রেফতার হন। সেই সময়ই তিনি কমিউনিস্ট ভাবাদর্শে দীক্ষিত হন। পরের বছর আবার গ্রেফতার হয়ে কারাগারে যাওয়ার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তাজউদ্দীন আহমদের সঙ্গে একই কারাকক্ষে বন্দি ছিলেন তিনি।


১৯৫৮ সালে যুক্ত হন নৃত্যশিল্পের সঙ্গে। ১৯৬১ সালে রবীন্দ্র শতবর্ষ পালনে পাকিস্তানি নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। ছায়ানটের নেতৃত্বে কামাল লোহানী ও হাজারও রাজনৈতিক সাংস্কৃতিককর্মী সাহসী প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। ১৯৬২ সালে তিনি ছায়ানটের সাধারণ সম্পাদক হন। পরে ১৯৬৭ সালে গড়ে তোলেন রাজনৈতিক আদর্শের সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘ক্রান্তি’।
ষাটের দশকের শেষ ভাগে ন্যাপের (ভাসানী) সঙ্গে যুক্ত হয়ে কামাল লোহানী যোগ দেন আইয়ুববিরোধী আন্দোলনে। ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানে পূর্ব বাংলার শিল্পীরা যে ভূমিকা রেখেছেন, তার সঙ্গেও তিনি যুক্ত ছিলেন।
১৯৭১ সালে যুদ্ধ শুরু হলে কামাল লোহানী যুদ্ধে যোগ দেন। সেই সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সংবাদ বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি বাংলাদেশ বেতারের পরিচালকের দায়িত্ব পান।
কামাল লোহানীর সাংবাদিকতার শুরু হয়েছিল দৈনিক মিল্লাত দিয়ে। এরপর আজাদ, সংবাদ, পূর্বদেশ, দৈনিক বার্তা, দৈনিক প্রভাত-এর গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেন। তিনি সাংবাদিক ইউনিয়নে দুই দফা যুগ্ম সম্পাদক ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর সামাজিক-সাংস্কৃতিক আন্দোলনে সম্পৃক্ত হন কামাল লোহানী। ১৯৮১ সালে দৈনিক বার্তার সম্পাদকের চাকরিতে ইস্তফা দিয়ে নতুন করে সাংস্কৃতিক আন্দোলনকে সংগঠিত করার কাজ শুরু করেন। পরে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট গঠনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।


বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে দুই দফায় মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন কামাল লোহানী। পাঁচ বছর ছিলেন ছায়ানটের সম্পাদক। তিনি উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের উপদেষ্টা পদেও ছিলেন।
১৯৬০ সালে কামাল লোহানী বিয়ে করেন। স্ত্রী দীপ্তি লোহানী বেশ কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। তাদের দুই মেয়ে এবং এক ছেলে।

(Visited 47 times, 1 visits today)