পাংশার শ্বশুরালয়ে আসার দু’দিন পর লাশ হলো রুমি, স্বামী আটক

মাসুদ রেজা শিশির/কাজী সেলিম মাবুদ :

67tled-1

বেশ কিছু দিন মোবাইল ফোনে প্রেমালাপ। তার পর বিয়ে এবং বিয়ের পর মাত্র দু’দিন পূর্বে শ্বশুরালয়ে আসে ২০ বছর বয়সী গৃহবধু রুমি বেগম। তবে এরই মাঝে উবে গেছে সব প্রেম ভালবাসা, হতে হয়েছে তাকে লাশ। গত সোমবার দুপুরে ওই গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ রুমির স্বামী হয়রত মোল্লাকে আটক করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার মাছপাড়া ইউনিয়নের রামকোলের বাহাদুরপুর গ্রামে। হযরত ওই গ্রামের তোরাব মোল্লার ছেলে।
জানাগেছে, তোরাপ মোল্লার ছেলে হযরত মোল্লার চতুর্থ স্ত্রী রুমি খাতুনের সাথে ৩ মাস আগে বিয়ে হয় বিয়ের পর থেকেই স্ত্রীকে নির্যাতন করে আসছিল স্বামী হযরত মোল্লা।
নিহত রুমির মা হালিমা খাতুন জানান, মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পরিচয়ের পর তারা পাবনা কোর্টে বিয়ে করে বিয়ের পর থেকেই আমার মেয়েকে নানা ভাবে নির্যাতন করত। এর ফলে আমার মেয়ে এখান থেকে আমার নিকট চলে গিয়েছিল। গত শনিবার জামাই আমাদের বিভিন্ন প্রলভোন দিয়ে তার বাড়ীতে মেয়ে নিয়ে আসতে বললে আমি মেয়েকে নিয়ে আসি এ নিয়ে রবিবার একটি গাম্য সালিশ হয়। সেখানে আমার মেয়ের নামে ৫ শতাংশ জমি দেওয়ার কথা হয় এবং তা ২/৪ দিনের মধ্যেই রেজিষ্ট্রি করার কথা ছিলো। এই জমি যাতে দেওয়া না লাগে সে জন্য সোমবার রাতে তার মেয়েকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রেখেছে।
এলাকার একাধীক লোক জানান, হযরত বিভিন্ন সময় ৪টি বিয়ে করেছে তার প্রতিটি স্ত্রী নিজে থেকেই তাকে ছেড়ে গিয়েছে বলে তারা জানান। মাছপাড়া ইউপির ৮নং ওয়ার্ড সদস্য সুলতান বলেন আমি সহ স্থানীয়রা রবিবার একটি গ্রাম্য শালিশ করে মিমাংষার চেষ্টা করেছিলাম তবে হযরত দৌড়ে পালিয়ে প্রমান করেদিয়েছে যে সে তার স্ত্রীকে হত্যা করেছে। থানা পুলিশ জানিয়েছে নিহত রুমী গলাই একাধীক ফাস লাগানোর চিহ্ন রয়েছে।
এ ব্যাপারে পাংশা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আবুল বাশার মিয়া বলেন, সকালে রুমির স্বামী হযরত মোল্লা বাদী হয়ে পাংশা থানায় একটি ইউডি মামলা করে এর প্রেক্ষেতে পাংশা থানার উপ-পরিদর্শক মোঃ হাফিজুর রহমান লাশের সুরতাহাল রির্পোট তৈরী করা কলে রুমির স্বামী হযরত মোল্লা পালানোর চেষ্টা করলে স্থানীয়রা তাকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ্য করেছে। এ রির্পোট লেখাকালীন রুমির মা হালিমা খাতুন বাদী হয়ে পাংশা থানায় হত্যা মামলার জন্য অভিযোগ দিয়েছে বলে জানাগেছে এবং লাস মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত রুমী লালমনিরহাট জেলার রামদেব গ্রামের নুরুজ্জামানের মেয়ে।

(Visited 31 times, 1 visits today)