নানা সমস্যায় জর্জরিত পূর্ব উড়াকান্দা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

লিটন চক্রবর্তী :

SAMSUNG CAMERA PICTURES

রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের পূর্ব উড়াকান্দা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৭০ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও অবকাঠামগত সমস্যাসহ নানা সমস্যায় বিদ্যালয়টি এখন জর্জরিত।
জানাগেছে, বিদ্যালয়টির মোট ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ২শত৫০ জন। এর মধ্যে মেয়ে শিক্ষার্থী অর্ধেকের বেশি। বিদ্যালয়টির ছেলেমেয়েদেও পড়াশোনার জন্য রয়েছে মাত্র ৩টি শ্রেণী কক্ষ। চেয়ার, টেবিল ও ব্রেন্সের স্বল্পতার কারণে ছাত্রছাত্রীরা গাদাগাদি করে পড়ালেখা করে। শিশু শ্রেণীর জন্য কোন কক্ষ না থাকায় এতো দিন স্কুলের পাশেই একটি জাম গাছের তলায় দেয়া হতো পাঠদান। তবে সম্প্রতি স্কুল ভবনের পাশে নির্মিত মাদ্রাসার একটি কক্ষে ওই শিক্ষার্থীদেও ক্লাস নেয়া হচ্ছে।
স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক স্বর্ণা সুলতানা জানান, এখানে আরো ৩টি কক্ষ দরকার শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া করানোর জন্য। স্কুলের শিক্ষকদের অফিস রুমটি এতোই সংকির্ণ যে ৭ জন শিক্ষক ভাল ভাবে বসতেও পারে না। বিদ্যালয়টির টয়লেট ভাঙ্গাচোরা। ছাত্রছাত্রীদের খেলাধুলার জন্য কোন মাঠ নেই। নেই কোন নিরাপত্তা প্রাচীর ও প্রহরী এবং দপ্তরী। স্কুল থেকে পদ্মা নদীর দূরত্ব মাত্র এক শত গজ। যে কোন সময় পুরো স্কুলটি নদী গর্ভে চলে যেতে পারে। এছাড়া বিদ্যালয়টি ভাঙ্গাচোরা থাকার কারণে ঘরের মধ্যে ইদুর ও বাদুরের উৎপাত চরম আকারে পৌছেসে। মাঝে মধ্যে চুরিও হয়। স্কুলটি শিক্ষকবৃন্দসহ বড় শিশুরা মিলে পবিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখে।
চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী রুপা আক্তার, পলি খাতুন ও তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র স¤্রাট জানায়, দপ্তরী না থাকায় ছাত্র-ছাত্রীরাই ঘন্টা বাজায়। সীমানা প্রাচীর না থাকায় অনেক শিক্ষার্থী নদীতেও পরে যায়। খেলার মাঠ না থাকার কারণে আমরা বিদ্যালয়ে এসে কোন রুপ খেলাধুলায় অংশ গ্রহণ করতে পারি না। সামান্য বৃষ্টিতে প্রতিটি কক্ষে পানি পরে। সে সময় আমাদের বই-খাতা পর্যন্ত ভিজে যায়। তারা বিদ্যালয়টির সংস্কারসহ সকল ধরণে সুবিধা নিশ্চিত করতে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করেছে।

(Visited 37 times, 1 visits today)