চাঁদাবাজী ও হয়রানী বন্ধে জিরো টলারেন্স –পুলিশ সুপার তাপতুন নাসরীন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

www-SC00345

আসন্ন ঈদ ও পূজা উপলক্ষে দৌলতদিয়া ফেরী ও লঞ্চ ঘাট দিয়ে ঢাকাগামী পশুবাহী যানবাহনে চাঁদাবাজী,হয়রানী জিরো টলারেন্সের ঘোষণা দিয়েছেন রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার তাপতুন নাসরীন।
গত বুধবার দৌলতদিয়া ফেরী ঘাটের সার্বিক অবস্থা সরেজমিন পরিদর্শনকালে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও টেলিভিশনের স্থানীয় প্রতিনিধিদের সাথে আলাপকালে তিনি রাজবাড়ী পুলিশ প্রশাসনের এ অবস্থানের কথা তুলে ধরেন।
রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার বলেন, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিধানের দায়িত্ব পুলিশের। এখানে কেউ বিঘœ সৃষ্টির চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।
তিনি বলেন,কেউ আইনের উর্ধে নয়। আমরা ইতোমধ্যে ৪ জনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছে। গোয়েন্দা সদস্যরা ভিডিও ক্যামেরা ও ইলেকট্রনিক উপকরণসহ কাজ করছে। সিনিয়র কর্মকর্তাদের মোবাইল নম্বর বিভিন্ন স্থানে টাঙ্গিয়ে দেওয়া হয়েছে। কোন যাত্রী হয়রানীর শিকার হলে তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশকে অবহিত করতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
দুপুরে পুলিশ সুপার দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষমান যানবাহনের চালক,গরুবাহী ট্রাকের রাখাল সহ বিভিন্ন জনের সাথে কথা বলেন । এসময় তিনি দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা এবং বিআইডব্লিউটিসির কর্মকর্তাদের সাথেও কথা বলেন এবং ঘাটের যানজট পরিস্থিতি সহ ফেরী পারাপারের ক্ষেত্রে সৃষ্ট সমস্যার বিষয়ে খোঁজ খবর নেন।
দৌলতদিয়া ফেরী ঘাট পরিদর্শনকালে অন্যান্যের মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমেদ, হাইওয়ে পুলিশের যশোর জোনের এএসপি মোজাম্মেল হোসেন, গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আব্দুল খালেক, ডিআইও-১ আব্দুল কাদের, গোয়ালন্দের পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত একে এম মিজানুর রহমান, টিআই গোপাল চন্দ্র মিস্ত্রি,পুলিশ পরিদর্শক মোঃ মিজানুর রহমান, গোয়ালন্দ নৌপুলিশ ফাঁড়ির আইসি মোশারফ হোসেন, বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া শাখা ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) শফিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

(Visited 74 times, 1 visits today)