বালিয়াকান্দিতে পুজা উৎযাপন পরিষদের বিরোধ মেটালেন এমপি জিল্লুল হাকিম

সোহেল রানা :

SAMSUNG CAMERA PICTURES

রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ জিল্লুল হাকিমের মহতী উদ্দ্যোগে বালিয়াকান্দি উপজেলা পুজা উৎযাপন পরিষদের বিরোধ শনিবার সন্ধ্যায় নিষ্পত্তি করা হয়েছে। বালিয়াকান্দি উপজেলা অফিসার্স ক্লাবে রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ জিল্লুল হাকিম, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট গনেশ নারায়ন চৌধুরী, উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, ভাইস চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ মানিক, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খোদেজা বেগম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুল হাসান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি(ভারপ্রাপ্ত) আঃ হান্নান মোল্যা, সাধারন সম্পাদক শামসুল আলম মিয়া সুফি, বালিয়াকান্দি কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা, বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ আবু শামা মোঃ ইকবাল হায়াৎ, জেলা পুজা উৎযাপন পরিষদের সহ-সভাপতি রাম গোপাল চ্যাটার্জী, সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন কুমার দাস, উপজেলা পুজা উৎযাপন পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ বিনয় কুমার চক্রবর্তী, সাধারন সম্পাদক সনজিৎ রায়, জঙ্গল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্র নাথ বিশ্বাস, নারুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রাবেয়া খানম, উপজেলা পুজা উৎযাপন পরিষদের সাবেক সভাপতি বঘু নন্দন সিকদার, সাবেক সাধারন সম্পাদক সুজিত কুমার সাহা, ভানু সোম, অশোক কুমার লাহিড়ী, ইউপি সদস্য প্রজিত বিশ্বাস, নরেন্দ্রনাথ সিকদার, সাংবাদিক সনজিৎ দাস, পুলক কুমার লাহিড়ীসহ পুজা উৎযাপন পরিষদের প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতাদের উপস্থিতিতে দীর্ঘদিনের এ বিরোধ নিষ্পত্তি করা হয়। ঘটে যাওয়া পুজা উৎযাপন পরিষদের পরিচিতি সভায় সংঘর্ষ ও মারপিটের ঘটনার প্রেক্ষিতে পুজা উৎযাপন পরিষদের সাবেক সাধারন সম্পাদক সুজিত সাহা জেলা কমিটির সহ-সভাপতি রাম গোপাল চ্যাটার্জীর পায়ে হাত দিয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। অপরদিকে সনজিৎ দাস মারপিট করেছে মর্মে অভিযোগ উঠায় হাউজের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। হাউজের গন্যমান্যবর্গ এ মিমাংসাকে হাততালি দিয়ে স্বাগত জানান। তবে পুজা উৎযাপন পরিষদের কমিটি বহাল থাকবে।
উল্লেখ্য, বালিয়াকান্দি ডিগ্রী কলেজে গত ৫ সেপ্টেম্বর বিকালে উপজেলা পূজা উৎযাপন পরিষদের পরিচিতি সভায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সাবেক ও বর্তমান কমিটির নেতাকর্মী দু,গ্রুপের সংঘর্ষে ১০জন আহত হয়।

(Visited 40 times, 1 visits today)