বালিয়াকান্দিতে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ ॥ স্বামী পলাতক

সোহেল রানা/ নুরে আলম সিদ্দিক, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

100_4462

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের খাটাগ্রামে মঙ্গলবার রাতে এক গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই গৃহবধুর নাম রুপালী পারভীন (২২)। তার স্বামীর নাম আবু বককার। বাড়ী উপজেলার খাটাগ্রাম। লাশ বালিয়াকান্দি হাসপাতালে ফেলে রেখে স্বামী ও স্বজনরা পালিয়ে গেলে বুধবার সকালে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজবাড়ী মর্গে পাঠিয়েছে।
জানাগেছে, ৪বছর পুর্বে উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের বড়হিজলী গ্রামের নিজাম জোয়াদ্দারের মেয়ে রুপালী পারভীনের বিয়ে হয় বহরপুর ইউনিয়নের সিরাজ উদ্দিনের ছেলে আবু বককারের সাথে। বিয়ের সময় নগদ ৩০ হাজার টাকা, একটি গরু ও স্বর্ণের চেইন দেয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ লেগেই থাকতো। রুপালী পারভীনকে শাররিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন করে আসছিল।
বুধবার হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, রুপালীর মরদেহ হাসপাতালের বারান্দায় পড়ে আছে। পুলিশ সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করছে। রুপালীর শশুর বাড়ীর লোকজন লাশ ফেলে রেখে পালিয়েছে। হাসপাতালের বাইরে এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোকজন বিষয়টি ধামাচাপা দিতে বৈঠক করছে।
রুপালীর চাচাতো বোন কমেলা বেগম জানান, বককারের সাথে রুপালীর বিয়ের পর একদিন তার ননদ জামাইয়ের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলা দেখে। তারপর থেকেই দিনের পর দিন রুপালীকে মারপিট করতে থাকে। মঙ্গলবার ও রুপালীকে মারপিট করে। তার কিছুক্ষণ পরই শুনতে পাই বিষপান করেছে। তাকে বালিয়াকান্দি হাসপাতালে এনে ভর্তি করে। সে হাসপাতালে মারা যায়।
রুপালীর বাবা নিজাম জোয়াদ্দার জানান, বিয়ের পর থেকেই তার মেয়েকে জামাই ও তার মামি নির্যাতন ও মারপিট করে আসছিল। গরীব হওয়ার কারণে রুপালী তা মুখ বুজে সহ্য করে আসছিল। তাকে মারপিট করে হত্যা করে মুখে বিষ ঢেলে হাসপাতালে ভর্তি করে।
হাসপাতালে জরুরী বিভাগ থেকে জানাযায়, রুপালীকে বিষপান করেছে মর্মে তার স্বামী আবু বককার ভর্তি করে। তাকে চিকিৎসা দেওয়ার প্রক্কালে মারা যায়। তবে শরীরে আঘাতের চিহৃ আছে কিনা সে বিষয়ে কোন উল্লেখ নেই।
বালিয়াকান্দি থানার এস,আই জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, লাশটি হাসপাতাল থেকে উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজবাড়ী মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট না পেলে কিছু বোঝা যাবে না।

(Visited 36 times, 1 visits today)