বালিয়াকান্দিতে মেলার নামে চলছে লটারী হাউজী সার্কাস

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

Bk-01

আগামী ১ ফেব্রুয়ারী আসন্ন এস,এস,সি পরীক্ষাকে সামনে রেখে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি কলেজ মাঠে মেলার নামে শুরু হয়েছে লটারী, হাউজী, সার্কাস প্রদর্শনী। নগ্ন নৃত্যের আসর যাত্রার প্রস্তুতি ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। গভীর রাত পর্যন্ত মাইকের শব্দে এলাকার স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় পড়–য়া শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় চরম বিঘœ সৃষ্টি হয়েছে। এলাকার সচেতন অভিভাবকদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সাথে সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে সিচকে চুরি। মেলায় প্রকাশ্যে চলছে মাদক সেবন ও বিক্রি।

শনিবার দুপুরে বালিয়াকান্দি কলেজ মাঠে গিয়ে দেখা যায়, কলেজের খেলার মাঠ কেটে দি গ্রেড রওশন সার্কাস প্রদর্শনী চলছে। পাশেই কলেজ মসজিদের সাথে লাগানো হয়েছে হাউজী খেলার জন্য বড় ছামিয়ানা টাঙ্গানো রয়েছে। মাইকের বিকট শব্দ ও প্রচার করা হচ্ছে আকর্ষনীয় পুরস্কারের নামে দৈনিক ফাইভ স্টার র‌্যাফেল ড্র, কলেজ ভবনের সামনে নগ্ন নৃত্য প্রদর্শনের জন্য সমস্ত আয়োজন সম্পন্ন করা হয়েছে। কলেজে ক্লাস খোলা থাকলেও রয়েছে অঘোষিত বন্ধ। শিক্ষার্থী শুধু কলেজে আসছে ঘুরে বেড়াতে। কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফার সাথে এ বিষয়ে কথা বলতে গেলেও তাকে পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে প্রথমে ফোন রিসিপ করলেও কথা না বলে ফোন কেটে দিয়ে ফোন বন্ধ করে দেন।
এলাকাবাসী জানান, আগামী ১ ফেব্রুয়ারী থেকে এস,এস,সি পরীক্ষা। পরীক্ষার সামনে বালিয়াকান্দি কলেজ মাঠে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত শতাধিক মাইক ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে এলাকায় শব্দ দুষণ হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার চরম বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। সার্কাসেও নৃত্য প্রদশন করা হচ্ছে। লটারীর আকর্ষনীয় অফার পেয়ে এলাকার নারী-পুরুষ লটারীর টিকিট ক্রয় করছে। প্রতিটি টিকিট ২০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। লটারীর টিকিট ক্রয় ও সার্কাসের নৃত্য দেখতে উঠতি বয়সী যুবক ও স্কুল-কলেজ পড়–য়া ছাত্ররা বাড়ী থেকে চাউল ও বিভিন্ন ফসল চুরি করে বিক্রি করে এসব আসরে আসছে। সার্কাস , লটারী, হাউজী খেলা শুরু হওয়ার সাথে সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে সিচকে চুরি। অর্থাভাবে টাকার যোগান দিতে চুরিতে জড়িয়ে পড়ছে। এসব কারণে এলাকার অভিভাবকরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। শুরু হয়েছে চুরি ও ডাকাতির ঘটনা। এলাকার অভিভাবকরা দ্রুত প্রশাসনের নিকট পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন।
কয়েকজন শিক্ষক নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে প্রশাসনের অনুমতি দেওয়ার প্রয়োজন ছিল। সামনে এস,এস,সি পরীক্ষা কয়েকদিন পর অনুষ্ঠিত হবে। এরমধ্যে এ ধরনের মেলার অনুমতি দেওয়া ঠিক হয়নি। তবে লটারী ও হাউজী খেলা চলার কারণে এলাকায় নানা ধরনের অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে। এ ধরনের কর্মকান্ড প্রশাসন কর্তৃক বন্ধ করে দেওয়া উচিত।
মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দিন সেখ জানান, তার নাতনী একটি লটারীর টিকিট ক্রয় করে। শুক্রবার রাতে ফোন করে জানানো হয় স্বর্ণের কানের দুল পেয়েছে। আসলে তাকে একটি জগ দেওয়া হয়। এনিয়ে বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয়।
বালিয়াকান্দি গ্রামের ইয়াছিন মোল্যার স্ত্রী রিক্তা বেগম জানান, তার মেয়ে মৌ ইয়াসমিনের নামে টিকিট ক্রয় করেন। শুক্রবার রাতে লটারী খেলার সময় তার ফোনে বারংবার ফোন করে জানানো হয় স্বর্ণের কানের দুল পেয়েছে। শনিবার সকালে লটারী খেলার স্থানে আসলেও তাকে স্বর্ণের কানের দুলের পরিবর্তে একটি জগ প্রদান করা হয়েছে।
বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জাহিদুল ইসলাম পিপিএম জানান, আমি বিশ্ব ইজতেমার ডিউটিতে আছি। তবে এ ধরনের অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুল হাসান জানান, মেলার অনুমতি কাগজ দেখে লটারী, হাউজীর অনুমতি না থাকলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

(Visited 58 times, 1 visits today)