দৌলতদিয়া ঘাটে ফের দালালচক্র সক্রিয়

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

6py

রাজধানী ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলের ২১টি জেলার সড়ক যোগাযোগের ক্ষেত্রে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া একটি গুরুত্বপূর্ণ নৌরুট। প্রতিদিন এ পথে বাস, মাইক্রোবাস, ট্রাকসহ শত শত বিভিন্ন গাড়ি ফেরিতে নদী পারাপার হয়।

এ সুযোগে দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরির টিকিট বুকিংকাউন্টার ঘিরে এক শ্রেণির দালালচক্র ফের সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ট্রাকচালকদের অভিযোগ, অতিরিক্ত টাকার বিনিময়ে দালাল না ধরলে এ ঘাটে ফেরির টিকিট মিলছে না।
বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট অফিস সূত্রে জানা যায়, গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে প্রতিদিন ৬ থেকে ৮শ ট্রাক ফেরিতে নদীপার হয়ে থাকে। সরকার নির্ধারিত ফেরিভাড়া অনুযায়ী ৫ থেকে ৭ টন ওজনের প্রতিটি সাধারণ ট্রাকের ফেরিভাড়া এক হাজার ৬০ টাকা। তবে নির্ধারিত ওজনের চেয়ে ট্রাকে বেশি মাল বহন করলে অতিরিক্ত ওজনের প্রতিটন ১২০ টাকা হরে মূল টিকিট মূল্যের সঙ্গে যোগ করা হয়। এজন্য ডিজিটাল ওয়েস্কেলের মাধ্যমে ফেরিপার হতে আসা প্রতিটি ট্রাকের সঠিক ওজন পরিমাপ করা হয়। তাই স্কেল থেকে দেওয়া ওজন স্লিপ অনুযায়ী প্রতিটি ট্রাকের ফেরিভাড়া আদায় করা হয়ে থাকে। তবে মালবোঝাই ট্রাকের ফেরিভাড়া নির্ধারণের বিষয়টি ট্রাকচালকসহ অনেকের অজানা।
এ সুযোগে স্থানীয় প্রভাবশালী দালালচক্র বিআইডাব্লিউটিসির টিকিট কাউন্টারকে ঘিরে ফের সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ফেরির টিকিট কিনে দেওয়ার নামে ওই দালালরা ট্রাকচালকদের জিম্মি করে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে।
সরেজমিন দৌলতদিয়া ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, ঘাটে কোন যানজট নেই। যশোর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী একটি ট্রাক দৌলতদিয়া ঘাটে এলে ট্রাকটির চালক খবির শেখ অজ্ঞাত এক দালালের খপ্পরে পড়েন। দ্রুত সময়ের মধ্যে ফেরির টিকিট কিনে দেওয়ার কথা বলে এসময় ওই দালাল তাঁর কাছ থেকে ওয়েস্কেলের স্লিপসহ নগদ ১৮শ টাকা নেয়। কিছুক্ষণ পর ওই চালকের হাতে এক হাজার ৬০ টাকা মূল্যের একটি ফেরির টিকিট ধরিয়ে দিয়ে দালাল পালিয়ে যায়।
ভুক্তভোগী ট্রাকচালক খবির শেখ আরো বলেন, ‘দৌলতদিয়া ঘাটে দালাল না ধরে সরাসরি কাউন্টার থেকে ফেরির টিকিট সহসা পাওয়া যায় না। তাই ঝামেলা এড়াতে অতিরিক্ত টাকা দিয়েই আমাকে ফেরির টিকিট কিনতে হয়েছে।’
এদিকে ঘাটসংশ্লিষ্ট একাধিক সুত্রের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়. দৌলতদিয়া ঘাটে বিআইডাব্লিউটিসির ফেরির টিকিট বুকিংকাউন্টার ঘিরে দালালচক্রের দৌরাত্ম্য চলছে দীর্ঘকাল যাবত। এ ক্ষেত্রে বিআইডাব্লিউটিসির কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা ও ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় থেকে দালালরা দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। ঘাটে যানজট থাকলে দালালদের দৌরাত্ম্য স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে কয়েক গুন বেড়ে যায়। তবে এরমাঝে প্রশাসনিক চাপে কিছুদিন বন্ধ থাকার পর ট্রাকপারাপারে ওই দালালাচক্র এখন ফের সক্রিয় হয়ে উঠেছে।
বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়াঘাট ব্যাবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সরকার নির্ধারিত নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি ট্রাকের আকার ও ওজনের উপর ভিক্তি করে ফেরির টিকিটমূল্য আদায় করা হচ্ছে। কাউন্টার থেকে নিয়ম বহির্ভুত অতিরিক্ত এক টাকাও আদায় করা হচ্ছে না।’
তবে দালালচক্র সক্রিয় থাকার বিষয়টি স্বীকার করে তিনি জানান, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।’
গোয়ালন্দঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম শাহ্জালাল বলেন, ‘ইতিমধ্যে দৌলতদিয়া ঘাটের ট্রাক বুকিংকাউন্টার এলাকা থেকে বেশ কয়েকজন দালালকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অপর দালালদের আটক করতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।’

(Visited 33 times, 1 visits today)