অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলো হুতুম পেচা

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

RAJBARIR - (5)-03.01

হিংস্্র প্রাণীর থাবায় গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে মৃত্যুর অপেক্ষায় রাস্তার পাশে পরে ছিল একটি হুতুম পেচা। ওই রাস্তা দিয়ে হাজারো মানুষের আনো-গোনা হলেও শত ব্যস্ততার মাঝে কেউ খেয়াল করেনি পেচাটিকে। ওই অবস্থায় জনৈক পাখী প্রমী রহমত উল্লাহর নজরে আসে পেচাটি। তিনি তাকে উদ্ধার করে প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ে এনে চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা করেছেন। এখন পেচাটি নড়াচড়া করছে। ফলে এ যাত্রায় প্রাণে বেঁচেছে সে। গত রবিবার রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের কুরশী গ্রাম থেকে ওই হুতুম পেচাটি উদ্ধার করা হয়।

পাখি উদ্ধারকারী স্থানীয় বাসিন্দা রহমত উল্লাহ বলেন, ওই রাস্তা নিয়ে মোটরসাইকেল চালিয়ে যাবার সময় তিনি লক্ষ করেন অনেকটা মৃত অবস্থায় হুতুম পেচাটি পরে আছে। কাছে গিয়ে খোঁচা দিতেই পাখিটি নড়েচড়ে ওঠে। তবে সে ছিল প্রচন্ড অসুস্থ্য। উঠে কোথাও চলে যাবার শক্তিও তার ছিল না। তার পাখিটির উপর মায়া হয়। তিনি মোটর সাইকেলে আরেকজন লোককে উঠিয়ে পাখিটিকে নিয়ে সোজা চলে আসেন জেলার বালিয়াকান্দি প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ে। সেখানে চিকিৎসা সেবা দেয়ার পর পাখিটিকে তিনি তার বাড়ীতে এনে রেখেছেন। দিচ্ছেন খাবার ও ওষুধ। আসা করছেন খুব শিঘ্রই পাখিটি সুস্থ্য হবে এবং ফিরে যাবে তার সাথীদের কছে।
উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের ভেটেরিনারী সার্জন ডা. খায়ের উদ্দিন আহম্মেদ জানান, কোন এক হিং¯্র প্রাণীর থাবায় হুতুম পেচাটির বাম পাশের ডানা জখম হয়েছে। যে কারণে পাখিটি যন্ত্রণায় অস্থির হয়ে মৃত্যুর প্রহর গুনছিল। ওই অবস্থায় জনৈক রহমত উল্লাহ পাখিটিকে তার কাছে নিয়ে আসেন। তিনি পাখিটির ক্ষতস্থানে জীবানু নাশক ওষুধ লাগিয়ে দিয়েছেন। একই সাথে এন্টিবায়াটিক ও ব্যাথা নাশক ওষুধও খেতে দিয়েছেন। ৩ থেকে ৫ দিন ওষুধ খাওয়ানোর পর পাখিটি’র সুস্থ্য হয়ে যাবার কথা। যে কারণে ওই ব্যক্তির কাছেই পাখিটিকে দিয়ে দেয়া হয়েছে। পাখিটি সুস্থ্য তা ছেড়ে দেয়া হবে।

(Visited 41 times, 1 visits today)