সওজ’র কথা শুনছেনা কেউ, রাজবাড়ীতে বাইপাস সড়ক নির্মাণের দাবী

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

tled-1

২৫/৩০ টন ওজন ধারন ক্ষমতা সম্পূর্ণ সড়কের উপর দিয়ে দেদারছে চলাচল করছে বালু ও পাথর বাহী ৬০/৬৫ টন ওজনের ওভার লোড ট্রাক। আর ওই ট্রাকের কারণে রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া ও রাজবাড়ী-ফরিদপুর সড়কটির এখন করুন অবস্থা। চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পরেছে এ সড়ক দুটির প্রায় ৩০ কিলো মিটার এলাকা। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি গ্রস্থ হয়েছে জেলা শহরের নতুন বাজার থেকে জেলা সদরের গোয়ালন্দ মোড় পর্যন্ত রাস্তা। সড়ক ও জনপথ বিভাগ এ সড়ক দিয়ে ভাড়ি যানবাহন চলাচল না করার জন্য বললেও শুনছেনা কেঊ। ফলে প্রতিদিনই সড়কের মাঝে দেবে আটকে যাচ্ছে পাথর অথবা বালু বাহি ট্রাক। আর এতে করে ঘন্টার পর ঘন্টা বন্ধ থাকছে ওই সড়কে যান চলাচল। গত শুক্রবার ভোড় ৬ টা থেকে সকাল ১০ টা পর্যন্ত বন্ধ থাকে এ সড়ক। সে সময় উভয় পাশে আটকে থাকে শত শত বাস ট্রাকসহ অন্যান্য যানবাহন। এতে চরম দূর্ভোগের শিকার হন ওই সব যানবাহণে আটকে থাকা যাত্রী এবং শহরের যাতায়াত করতে আসা এলাকাবাসী।

সংশ্লিষ্টরা জানান, সাম্প্রতি এ সড়ক দিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ স্থানসহ দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা গুলোর উন্নয়ন কাজে ব্যবহারের লক্ষে নেয়া হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৫ টন ওজনের বড় বড় পাথর ভর্তি ১০ চাকার ট্রাক। একই সাথে ওই ট্রাকের সাথে পাল্লা দিয়ে জেলা সদরের জৌকুড়া ফেরি ঘাট থেকে বৃহত্তর যশোর, খুলনা, ফরিদপুর, পটুয়াখালী ও বরিশালের বিভিন্ন জেলা গুলোর উন্নয়ন কাজে ব্যবহারের লক্ষে নেয়া হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টন ওজনের বালু ভর্তি ট্রাক। বালু এবং পাথর ভর্তি ট্রাক গুলোর কারণে এ সড়ক এখন মৃত্যু ফাঁদ পরিণত হয়েছে। সড়কের দীর্ঘ ৩০ কিলো মিটার এলাকাই হয়ে পড়েছে অত্যান্ত ঝুকিপূর্ণ। বেশিরভাগ এলাকাই হয়ে গেছে অসমতল।
রাজবাড়ী সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মির্জা কবির বলেন, ভাল সড়কটি চোখের সামনে দূর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটি ২২ থেকে ২৫ টন মালামাল পরিবহন যোগ্য একটি সড়ক। অথচ ৬ চাকার ১৫ টন ওজনের ট্রাকে বালু লোড দেয়া হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টন এবং ১০ চাকার সাড়ে ২২ টন ওজনের ট্রাকে লোড দেয়া হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৫ টন ওজনের পাথর। ফলে এ সড়কটির বিভিন্ন স্থান উচু-নিচু হওয়ার পাশাপাশি ভেঙ্গে তা ক্রমশই চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়ছে।
গতকাল সকালে ক্ষতিগ্রস্থ সড়টি দেখতে আসে রাজবাড়ী সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী খন্দঃ গোলাম মোস্তফা বলেন, ইতোমধ্যেই জেলা শহরে পাবলিক হেলথ থেকে ফায়ার সার্ভিস পর্যন্ত প্রায় ৩৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ৩শত মিটার রাস্তা রিকনষ্টাকশন কাজ শুরু করা হয়েছে। এ কাজটি শেষ করার পর ক্ষতিগ্রস্থ আরো ১০টি স্পটও প্রায় সমপরিমান টাকা ব্যয়ে রিকনষ্টাকশন করা হবে। আনন্ত কাজ করা কালিন সময়েও যদি ওই ভাড়ি ট্রাকগুলো চলাচল বন্ধ রাখা সম্ভব হতো তা হলে মুনষকে খুব বেশি দূর্ভোগের শিকার হতে হতো না। বিষয়টি তিনি জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ঠদেকে জানিয়েছেন। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি।
ওই কাজের ঠিকাদার ও সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান শরিফ বলেন, পাথর ও বালু বাহি ওভার লোড ট্রাক গুলো আসছেই এবং তা সড়কের মাঝে দেবে গিয়ে পুরো রাস্তাটি ব্লক করে দিচ্ছে। তিনি বলেন, প্রতিটি জেলা শহরেই বাইপাস সড়ক আছে। ব্যতিক্রম শুরু রাজবাড়ী শহর। বাইপাস সড়ক না থাকার কারণেই যানজটের দূর্ভোগ হচ্ছে।

(Visited 38 times, 1 visits today)