বন্যার তাড়া খেয়ে শহরে, তবু পানিতে মৃত্যু শিশুটির

গণেশ পাল :

বন্যার পানির হাত থেকে সুরক্ষা পেতে মা-বাবার সঙ্গে বাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে গিয়েছিল দুই বছরের শিশু অনিক। তাকে নিয়ে মা-বাবা উঠেছিলেন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌর এলাকার আত্মীয়ের বাড়িতে। কিন্তু সেখানে সবার অগোচরে খালের পানিতে পা পিছলে পড়ে গিয়ে ডুবে মারা গেছে শিশুটি। গত শুক্রবার বিকেলে গোয়ালন্দ পৌর এলাকার বিজয় বাবুরপাড়া মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রাজবাড়ী সদর উপজেলার ধাওয়াপাড়া গ্রামের স্বর্ণশিল্পী অকুল চন্দ্র হালদার। তাঁর একমাত্র ছেলে দুই বছরের অনিক। চলতি বর্ষায় বাড়ির চারপাশ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। এ অবস্থায় অজানা আশঙ্কায় চঞ্চল প্রকৃতির শিশু অনিককে নিয়ে বিপাকে পড়েন তার মা-বাবা। তাই বন্যার পানি থেকে ছেলেকে রক্ষা করতে কয়েক দিন আগে অকুল তাঁর নিজ বাড়ি ছেড়ে সপরিবারে চলে আসেন গোয়ালন্দ পৌর এলাকার বিজয় বাবুরপাড়া মহল্লায়। সেখানে নিকটাত্মীয় ডা. গৌরাঙ্গ দাসের বাড়িতে আশ্রয় নেন তাঁরা।

ঘটনার দিন গত শুক্রবার দুপুরে অকুলের স্ত্রী চম্পা রানী হালদার ছেলে অনিককে সঙ্গে নিয়ে ওই বাড়ির পাশে খালের পাড়ে বসে গোবর দিয়ে জ্বালানি তৈরির কাজ করছিলেন। এ সময় মায়ের অগোচরে শিশু অনিক খালের ঢালুতে নামতে গেলে হঠাৎ পা পিছলে পানিতে পড়ে যায়। পরে দুপুর গড়িয়ে বিকেল হয়ে এলেও শিশু অনিকের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। অবশেষে শুক্রবার বিকেলে ওই খালের পানিতে ভেসে ওঠে অনিকের লাশ।

এদিকে একমাত্র ছেলে অনিককে হারিয়ে তার মা-বাবা এখন পাগলপ্রায়। ছেলেহারা অকুল চন্দ্র হালদার বুকফাটা আর্তনাদ করে বলেন, ‘যে জলের ভয়ে ছেলেকে নিয়ে আমরা বাড়ি ছেড়েছি সেই জলেই আমার ছেলে অনিক ডুবে মরল।’

(Visited 26 times, 1 visits today)