গোয়ালন্দে নির্যাতিত গৃহবধুর আত্মহত্যার চেষ্টা

আজু সিকদার :

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে স্বামীর পরকীয়ায় বাঁধা দেয়ায় নির্যাতনের শিকার হয়ে বুধবার আত্মহত্যার চেষ্টা চলিয়েছে ফিরোজা বেগম (৩০) নামের এক গৃহবধু। ফাঁসি রশি থেকে উদ্ধার করা ওই গৃহবধু এখন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে লড়ছেন।

সে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের বাহিরচর গ্রামের মো. আব্দুর
রাজ্জাক মোল্লার স্ত্রী।

গৃহবধুর পিতা মো. আব্দুস সামাদ মৃধা  জানান, ১৪ বছর আগে তার মেয়েকে বিয়ে দেয় একই এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের সাথে। দীর্ঘদিনের সংসারে তাদের দুটি মেয়ে রয়েছে। কিছুদিন যাবৎ আব্দুর রাজ্জাক অন্য একটি মেয়ে সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। ঘটনা টের পেয়ে ফিরোজা স্বামীকে পরকীয়ায় বাঁধা দেয়। এতে তার স্বামী ক্ষিপ্ত হয়ে বেশ কিছুদিন যাবৎ ফিরোজার উপর শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। বুধবার দুপুরে তাকে তার স্বামী মারধর করলে রাগে অভিমানে ফিরোজা নিজ ঘরে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। এসময় বাড়ির অন্য সদস্যরা টের পেয়ে ঘরের দরজা ভেঙ্গে ফিরোজাকে উদ্ধার করে
গোয়ালন্দ হাসপাতালে নিয়ে আসে।

হাসপাতালে তার অবস্থার আরো অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আশিষ কুমার বড়াল দ্রুত ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে। তিনি আরো জানান, এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। এদিকে ঘটনার পর ফিরোজা বেগমের স্বামী আব্দুর রাজ্জাকের সাথে কথা বলতে চাইলে তাকে খুজে পাওয়া যায়নি।

(Visited 26 times, 1 visits today)