কালুখালীতে কৃষক নিহতের ঘটনায় ৩১ জনের বিরুদ্ধে মামলা ॥ আহত ৮-

ফজলুল হক, মাসুদ রেজা শিশির, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

 

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজবাড়ী জেলাধীন কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের দক্ষিণ কুমড়ীরাজ গ্রামে মোতালেব সরকার (৫৫) নামে এক কৃষককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। নিহত মোতালেব গ্রামের মৃত ছামাদ সরদারে ছেলে। ঘটনার বিবরণে মামলা সূত্রে জানা যায় গত সোমবার বেলা ১২ টার দিকে পার্শবর্তী দক্ষিন নগড় বাতান গ্রামের আলী আকবর মোল্লার ছেলে মোঃ বিল্লাল মোল্লা বাই সাইকেল যোগে নিজ বাড়িতে যাওয়ার সময় দক্ষিণ কুমড়ীরাজ গ্রামের জামির সরদারের ছেলে মিজানকে ধাক্কা দেয় এ নিয়ে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে বিল্লাল বাড়িতে গিয়ে তার সমাজ ভুক্ত লোকজনকে জানায়। সংবাদ শুনে ১নং আসামী আবু সায়েম মন্ডল (৩২) পিতা- তবিবর মাষ্টার সহ এজাহার নামীয় সকল আসামী এবং অজ্ঞাতনামা আসামীরা ঐ দিন বেলা ১২ টা ৩০ মিনিটের দিকে রাম দা, হাসুয়া, লোহার রড, বাশের লাঠি, কাঠের ডাসা ইত্যাদি হাতে নিয়ে দক্ষিণ নগড় বাতান গ্রামে গিয়ে রাস্তার উপরে থাকা মোতালেব সরদার (৫৫) এবং তার ছেলে আকিদুল (২৬) কে আসামীরা সায়েম ও ওহাব মুন্সির হুকুমে ধাড়ালো হাসুয়া দিয়ে খুন করার উদ্দেশ্যে মোতালেব সরদারের মাথায় কোপ দিয়ে মাথার খুলি কাটিয়া মগজ বাহির করে ফেলে। এবং আকিদুলকে এলোপাথারি ভাবে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এছাড়াও আসামীরা ক্ষিপ্ত হয়ে কুলছুম বেগম (৪০) স্বামী সোহরাব সরদারকে নাক, কান, মাথায় আঘাত প্রাপ্ত করে। হালিমা খাতুন (৩০) স্বামী শুকুর আলী সরদারকে শরীরের বিভিন্ন অংঙ্গে আঘাত করে, রাশেদ সরদার (২০) পিতা- শহিদুল সরদারকে মাথায় আঘাত, শাহিন সরদার (৫০) পিতা- শহিদ সরদারকে সারা শরীরে আঘাত, মোসলেক সরদার পিতা- ছামাদ সরদারকে আঘাত, মিজান সরদার পিতা- জামির সরদারকে শরীরে আঘাত, সোহরাব সরদার পিতা- গনি সরদার উভয় সাং- দক্ষিণ কুমড়ীরাজ এদেরকে মারপিট করে আঘাত প্রাপ্ত করে আহত করে। আহতদেরকে প্রথমে পাংশা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। এসময় মোতালেব সরদার ও আকিদুলের অবস্থা খারাপ দেখে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে গিয়ে মোতালেবের অবস্থা বেগতিক দেখে তাকে ১২ তারিখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসা অবস্থায় তিনি ঐ দিন বিকাল ৫.৩০ মিনিটের দিকে মারা যায়। এব্যাপারে কালুখালী থানা অফিসার ইনচার্জ নুরে আলম ফকিরের সাথে কথা হলে তিনি জানান নিহত মোতালেব সরদারের লাশ ১৩ তারিখ সকাল ১০ টার দিকে ঢাকা থেকে পোষ্ট মটাম করা হয়েছে। রাতে গ্রামের বাড়িতে তার যানাজা সম্পূর্ণ হবে। এছাড়াও আহতদের পাংশা ও ফরিদপুর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় মোতালেব সরদারের ভাই আবুল কালাম সরদার বাদি হয়ে ১২ তারিখ সন্ধায় তবিবর রহমানের ছেলে আবু সায়েম মন্ডলকে প্রধান আসামী করে ৩০ জনকে এজার নামীয় ও ২৫/৩০ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে কালুখালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে যার নং- ০৬ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই সাখাওয়াত হোসেন এর সাথে কথা হলে তিনি জানান আসামীদের গ্রেপ্তারের জোর প্রচেষ্টা অব্যহত আছে। এছাড়াও এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পাংশা সার্কেল মোঃ ফজলুল করিম, সাওরাইল এলাকা ঘুরে কালুখালী থানা পরিদর্শন করেছে। বর্তমানে ওই এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

(Visited 128 times, 1 visits today)