পাংশায় পৃথক ভাবে অপহৃত যষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীর দুই মাদ্রাসা ছাত্রী উদ্ধার-

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

32h

রাজবাড়ীর পাংশা থেকে অপহৃত ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীর দুই মাদ্রাসা ছাত্রীকে গতকাল বুধবার পৃথক অভিযান চালিয়ে পুলিশ উদ্ধার করেছে। সেই সাথে মুক্তার সেখ নামে এক অপহরণকারীকে তারা গ্রেপ্তার করেছে।
পাংশা থানার এসআই সাখাওয়াত হোসেন জানান, জেলার পাংশা থেকে গত ১৭ জুলাই সকালে মাদ্রাসায় যাবার পথে ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়–য়া এক ছাত্রী (১২)কে কুষ্টিয়া জেলার খোকশা উপজেলার দুদরাজ গ্রামের ইসমাইল সেখের ছেলে মুক্তার সেখ (৩৪) ও তার সহযোগীরা জোর পূর্বক অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় গত ২৫ জুলাই মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে পাংশা থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলায় প্রধান আসামী করা হয় মুক্তার সেখকে। মুক্তার ওই ছাত্রীকে অপরহরণের পর তাকে বিভিন্ন স্থনে আটকে রাখে। সর্বশেষ রাজধানী ঢাকার সাভার এলাকায় অভিযান চালিয়ে গতকাল বিকালে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার এবং অপহরণকারী মুক্তার সেখকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার হওয়া মুক্তার একজন রাস্তায় কাজ করা শ্রমিক। তার স্ত্রী ও ৩টি সন্তান রয়েছে।
থানার অপর এসআই মনিরুজ্জামান মোল্লা জানান, একই এলাকা থেকে গত ২০ ফেব্রুয়ারী দুপুরে সপ্তম শ্রেণীতে পড়–য়া অপর ছাত্রী (১৩) কে দূর্বৃত্তরা অপহরণ করে। এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে রাজবাড়ীর আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় জেলা পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউনিয়নের চর রামনগর গ্রামের ইমারত মোল্লার বখাটে ছেলে আলাল মোল্লা (২৫)সহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামী করা হয়। আদালতের নির্দেশে মামলাটি গত ৩ এপ্রিল পাংশা থানায় রেকর্ড করা হয়। মূলত তার পর থেকেই মেয়েটিকে উদ্ধারে অভিযান শুরু করে পুলিশ। নানা স্থানে অভিযান শেষে গতকাল একই উপজেলার মৌকুড়ী গ্রামে থাকা আলালের মামা বাদশার বাড়ী থেকে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আলাল পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।
পাংশা থানার ওসি এসএম শাহজালাল জানান, অপহৃতদের উদ্ধারের পর রাজবাড়ী হাসপাতালে তাদের ডাক্তারী পরীক্ষা করানো হয়েছে। সেই সাথে আদালতে জবানবন্দী রেকর্ড করা হয়েছে।

(Visited 101 times, 1 visits today)