সাফল্যের ২৮ বছর, কালুখালী ডিগ্রি কলেজ সরকারী করনের দাবী –

শহিদুল ইসলাম, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

257

সাফল্যের ২৮ বছরে পা রেখেছে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার কালুখালী ডিগ্রি কলেজে। কলেজটি সরকারী করনের জন্য এলাকাবাসীসহ ছাত্র-শিক্ষকগন জোরালো দাবী তুলছে।
১৯৮৮ সাল সারাদেশ বন্যায় তলিয়ে যায়। অর্ধাহারে,অনাহারে দিন কাটছিল কালুখালীবাসীর। এই দুঃসময় কালুখালীর শিক্ষানুরাগী মানুষ একতাবদ্ধ হয়ে চন্দনা নদীর তীরে প্রতিষ্ঠা করে কালুখালী কলেজ। শুরুতেই পাঠদান হতো বিজ্ঞান,মানবিক ও বানিজ্য শাখায়। শুভ সুচনা বর্ষে কলেজটির পাশের হার ছিল শতভাগ। সাফল্যের এই ধারাবাহিকতা ঠিক রেখে এগিয়ে যেতে থাকে কালুখালী কলেজ।
১৯৯৮সালে কলেজটি ডিগ্রি কলেজের স্বীকৃতি পায়। পর্যায়ক্রমে কলেজটিতে বি.এম শাখা ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের এইচ.এস.সি ও ¯œাতক প্রোগ্রাম চালু হয়েছে।কলেজটির সুনাম ছড়াতে থাকে সর্বত্র।প্রতিবছরই এখানকার পাশ করা শিক্ষার্থীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ পায়। বিগত ১০বছরে কলেজটি ৩বার জেলার শ্রেষ্ঠ কলেজ,কলেজের অধ্যক্ষ ২বার জেলার শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ ও ৪জন শিক্ষক ৪বার জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়।
কলেজটির শিক্ষার্থী সংখ্যা ২হাজার ৫শ জন।শিক্ষক- কর্মচারীর সংখ্যা ৬১জন।১টি ৪তলা ভবন,২টি দ্বিতল ভবন,৩টি টিনসেট ঘরে কলেজটির পাঠদান কার্যক্রম চলে। এর সমৃদ্ধ লাইব্রেরী,সুসজ্জিত বিজ্ঞানাগার ও ভুগোল বিভাগ আছে।ক্যাম্পাসের মনোমুগ্ধকর পরিবেশে রয়েছে একটি মনোরম মসজিদ।
উপজেলা কমপ্লেক্সের দেড়শ গজ পশ্চিমে অবস্থিত এই কলেজটি স্বাধীনতার চেতনায় উদ্দীপ্ত মানুষ দ্বারা পরিচালিত হয়। কলেজের সভাপতি রাজবাড়ী-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মোঃ জিল্লুল হাকিম ছিলেন ৭১এর রনাঙ্গনের সাহসী মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ।এছাড়া কলেজের অধ্যক্ষ এ.কে.এম জয়নাল আবেদীন ৭১এর রনাঙ্গনের একজন মুক্তিযোদ্ধা।কলেজটির শিক্ষকগন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী ।ফলে শিক্ষার্থীরা স্বাধীনতার চেতনা কলেজ থেকেই লাভ করে।
উপজেলার প্রাণকেন্দ্রের এই কলেজেটি সরকারী করনের জন্য এলাকাবাসীসহ ছাত্র-শিক্ষকগন প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

(Visited 178 times, 1 visits today)