রাজবাড়ীতে দুই ভাই বোন অপহরণের ঘটনার আশ্রয়দাতা গ্রেপ্তার –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

0456F8051

রাজবাড়ীতে কলেজ পড়–য়া বোন ও চার বছর বয়সী শিশু ভাইকে অপহরণের ঘটনায় গত রবিবার রাতে এক আশ্রয়দাতাকে পুলিশ গ্রেপ্তার। তবে ওই ঘটনার পর আট দিন অতিবাহিত হলেও অপহৃত কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। গ্রেপ্তারকৃত আশ্রয়দার নাম মেহদী হাসান খোকন (৩৫)। সে রাজবাড়ী জেলা শহরের লক্ষিকোল হরিসভা গ্রামের মৃত আকবর মহুরীর ছেলে। এর আগে ওই অপহরণের ঘটনার চার দিন পর গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে দূর্বৃত্তরা বাড়ীর গেটের সামনে শিশুটিকে ফেলে রেখে চম্পট দেয়।
জানাগেছে, একাদশ শ্রেণীতে পড়–য়া ওই ছাত্রী ও তার পরিবারের সদস্যদের নিয়মিত ভাবে আনা নেয়ার সূত্র ধরে রাজবাড়ী জেলা শহরের হরিসভা গ্রামের মৃত আকবরের ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা চালক ছেলে শহিদ (৩৫) এর সাথে সু-সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এ সম্পর্কের সুবাদে এক সন্তানের জনক শহিদ মাঝে মধ্যেই ওই ছাত্রীর বাড়ীতে যাতায়াত করতো। সম্প্রতি শহিদ তার স্ত্রীকে তালাক দেয় এবং ওই ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টায় লিপ্ত হয়।
ওই ছাত্রী মা বলেন, হঠাৎ করেই অটো চালক শহিদের চালচলন পরিবর্তন হতে শুরু করে এবং শহিদ তার মেয়েকে মাঝে মধ্যেই কু-প্রস্তাব দিতে থাকে। তিনি বিষয়টি লক্ষ করে তাকে নিষেধ করেন। এতে শহিদ ক্ষিপ্ত হয় এবং তার পরিবারের ক্ষতি করতে উঠে পরে লাগে। গত ২৬ জুন সকাল ১০ টার দিকে তার মেয়ে চার বছর বয়সী শিশু ছেলেকে নিয়ে দাদা বাড়ীতে বেড়ানোর উদ্দেশ্যে বেড় হয়। তারা জেলা শহরের নতুন বাজার এলাকায় পৌছতেই শহিদ ও তার সহযোগীরা জোরপূর্বক দুই ভাই বোনকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এর পর পরিবারের সদস্যরা অনেক খোঁজাখুজি করেও তাদের কোন সন্ধান করতে পারেননি। যদিও খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে শহিদ একটি মোবাইল ফোন থেকে কল করে তার ছেলে ও মেয়ের সাথে কথা বলিয়ে দেয়। তবে তাদের কোথায় আটকে রাখা হয়েছে তা বলতে অপারগতা প্রকাশ করে। তার দুই ছেলে ও এক মেয়ে সন্তানের মধ্যে ছোট ছেলে এবং একমাত্র বড় মেয়ে নিখোঁজ থাকায় তিনি চরম দুশ্চিন্তার মধ্যে ছিলেন। এ মতাবস্থায় গত বৃহস্পতিবার রাত ১ টার দিকে অজ্ঞাত পরিচয়ের দূর্বৃত্তরা তার শিশু ছেলেকে বাড়ীর গেটের সামনে ফেলে রেখে চম্পট দেয়। এ সময় তার শিশু ছেলেটি চিৎকার করে কাঁদতে থাকে এবং মা মা বলে ডাকতে থাকে। তার চিৎকার শুনে তিনি ঘর থেকে বের হন এবং শিশুটিকে কোলে তুলে নেন।
রাজবাড়ী থানার এসআই মনিরুজ্জামান জানান, ওই ছাত্রীর মা শহিদকে প্রধান আসামী করে দুই জনের নামে রাজবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলার পর থেকেই শিশুটি ও তার বোনকে উদ্ধার এবং আসামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ওই চেষ্টার অংশ হিসেবে গভীর রাতে দূর্বত্তরা শিশুটিকে ফিরিয়ে দিয়ে গেছে। তবে তার বোনকে এখনো আটকে রেখেছে। মোবাইল ফোনের কললিষ্টের সূত্র ধরে জেলা শহরের নতুন বাজার এলাকা থেকে মেহদী হাসান খোকনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মেহেদী অপহরণকারী শহিদের সৎভাই। পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে মেহেদী গুরুত্বপূর্ন তথ্য দিয়েছে। আশা করা হচ্ছে দ্রুত সময়ের মধ্যেই ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করা সম্ভব হবে। মেহেদীর বিরুদ্ধে দশ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে।
গতকাল সকালে থানা হাজতে থাকা মেহদী হাসান খোকন বলেন, তিনি রাজধানী ঢাকার মটর পার্সের ব্যবসা করেন। কয়েকদিন আগে শহিদ ওই ছাত্রীকে নিয়ে তার বাসায় আশ্রয় নেয় এবং রাত যাপন করে। তবে তিনি কিছু টাকা দিয়ে পর দিন বিদায় করেদিয়েছেন। এর পার আর কিছুই তিনি জানেন না। এক নারী পুলিশ কনষ্টেবলের প্রেমের ফাঁদে পা দিয়ে তিনি রাজবাড়ীতে আসেন এবং পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

(Visited 78 times, 1 visits today)