রাজবাড়ী জেলা সদরের ১৪ ইউপি’র প্রার্থীদের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত –

লিটন চক্রবর্তী, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

0098titled-1

আসন্ন রাজবাড়ী সদর উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন আগামী ৭ এপ্রিল।আর নির্বাচনের যাতে সুষ্ঠুভাবে হয় এ জন্য জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন সহ সরকারি সকল দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের ব্যস্ত সময় অতিবাহিত হচ্ছে। প্রশাসনেরও প্রস্তুতি রয়েছে সকল কিছু সমস্যা মোকাবেলা করে সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচন পরিচালনা করা।
এদিকে গতকাল সোমবার সকালে সদর উপজেলা প্রশাসন ও সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসের যৌথ আযোজনে সরকারি বালক বিদ্যালয়ের হলরুমে আসন্ন ইউ,পি নির্বাচনে সকল ইউনিয়নে সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষতা বজায় রাখবার প্রয়াসে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের সাথে সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন এবং আচরনবিধি সম্পর্কে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
ওই সভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক জিনাত আরা বলেন, আমরা সকল প্রশাসন এক হয়ে মাঠে নেমেছি। সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে আমরা প্রস্তুত। কেউ কাউকে ভোটাধিকার প্রয়োগে বাঁধা দেবেন না। প্রতিযোগিতা বা পরীক্ষার মতো সঠিক উপায়ে পাশ করবেন। এটি আমাদের একমাত্র চাওয়া। আমাদের দ্রুত গন্তব্যে পৌছানোর জন্য সকল ব্যবস্থা অতিরিক্ত আয়োজন করা রয়েছে। তাই অসৎ উদ্দেশ্যে চরিতার্থের চেষ্টা করে কোন লাভ হবেনা। আমরা চাই ১২৭ টা কেন্দ্রেই ভোট শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পাদন করে সরকারের মান অক্ষুন্ন রাখতে। কোনো রকম আপোষ নেই দুষ্টুচক্রের সাথে।
এ সভার বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম বলেন, ভোটের স্বার্থে কেউ কাকে অর্থকড়ি দিবেন না। জনগনের কাছে গিয়ে কাজ করলে লাভ হবে। সকলে আচরনবিধি মানবেন ভাংলে ঠিক হবেনা। রাজবাড়ীর রাজনীতি সৌহার্দপূর্ণ। তাই নির্বাচনের দিন সৌহার্দ্যপূর্ণ অবস্থান বজায় রেখে নিজেদের ঐতিহ্য রক্ষা করবেন। তিনি কোনো বিধি অমান্যকারিকে বরদাস্ত করবেন না বলে হুশিয়ারী ব্যাক্ত করেন। কোন অন্যায় চোখে পড়লে সর্বচ্চ কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি বলেন।
রাজবাড়ী সদর উপজেলার সকল ইউ,পি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দীতাকারি প্রার্থিদের উপস্থিতিতে মতবিনিময় সভায় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেওয়ান মাহাবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক জিনাত আরা। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এম, মাজাহারুল ইসলাম, সদর উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) রওশনারা পলি ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আওলাদ হোসেন পিপিএম উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন।
এ সময় মঞ্চে নির্বাচনের রিটানিং অফিসার সদর উপজেলা মৎস কর্মকর্তা মো ইমদাদুল্লাহ, সমাজ সেবার জিল্লুর রহমান, পরিবার পরিকল্পনার সোয়েব আলী, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ নুরুল্লাহ মোঃ আহসান, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আতাহার হোসেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাকিব উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
প্রার্থীদের পক্ষে মুক্ত আলোচনায় অংশ গ্রহন করেন খানখানাপুরের চেয়ারম্যান প্রার্থি ইকবাল হোসেন, মিজানপুরের চেয়ারম্যান প্রার্থি আতিয়ার হোসেন, চেয়ার ম্যান তকদির হোসেন সহ বেশ কয়েকজন মেম্বার প্রার্থিদের পক্ষে নানা সমস্যা ও সমাধানের গুরুত্ব আরোপ করে বক্তব্য রাখেন স্বতস্ফুর্ততার সাথে।
অনুষ্ঠানের শুরুতেই মত বিনিময় সভার সভাপতি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নির্বাচনের সকল আইন নিয়ে আলোচনার পর বলেন এগুলো যেনো সকল প্রার্থি দেশের স্বার্থে মেনে চলেন।
রাজবাড়ী সদর থানার ভাপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আওলাদ হোসেন প্রার্থিদের উদ্যেশে বলেন, আপনারা ঠিক থাকলে যতবড় গুন্ডা, অবৈধ অস্ত্রধারী, ভাড়াটিয়া, মাস্তানের বিরুদ্ধে পুলিশ প্রস্তুত থাকবে। তবে আপনারা কেউ একে অপরের ওপর উত্তেজিত হবেন না।
সহকারি কমিশনার (ভূমি) রওশনারা পলি বলেন, আপনাদের বুঝাবার জন্য আর সচেতন করবার জন্য আমাদের এই প্রয়াস। তাই আপনারা আইন মেনে নির্বাচন সুষ্ঠু ভাবে পার করতে পারলেই আমাদের সার্থকতা।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এম মাজাহারুল ইসলাম বলেন, সকল প্রার্থীর কাছে আচরনবিধি সম্বলিত পুস্তক দেয়া আছে তা পুরোটাই পড়লে আমাদের এই আয়োজন করতে হতোনা। নির্বাচনের মাঠে আমাদের অফিসের কর্মকর্তারা রেফারী,সরকার হচ্ছে পরিচালক আর প্রার্থীরা প্লেয়ার। তাই লাল ও হলুদ কার্ড কিন্তু আমাদের হাতে সে জন্য আমরা নীরব ঘাতক। তাই অপরাধের ধরন চোখে পড়লেই কার্ড প্রদর্শন।

(Visited 118 times, 1 visits today)