ঢাকাFriday , 29 July 2022

গোয়ালন্দে ১৮ বছর পর বিএনপি’র সম্মেলন, একাংশের বয়কট

Link Copied!

শামীম শেখ, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :  

দীর্ঘ ১৮ বছর পর গোয়ালন্দ উপজেলা ও পৌর বিএনপির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

শুক্রবার সকাল ১০ টায় উপজেলার পশ্চিম উজানচর নবুওসিমদ্দিন পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এ সম্মেলন শুরু হয়। 

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ। 

গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক নিজাম উদ্দিন শেখ এর সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মাশুকুর রহমান,সেলিমুজ্জামান সেলিম, জেলা বিএনপির আহবায়ক অ্যাডভোকেট লিয়াকত আলী বাবু , যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট আসলাম মিয়া, সদস্য সচিব এ্যাডভোকেট কামরুল আলম প্রমূখ। 

বিকেলে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে কাউন্সিলরদের ভোটে উপজেলা বিএনপির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন পৌর কাউন্সিলর নিজামুদ্দিন শেখ। সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন মোশাররফ আহমেদ। সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন মোঃ আমজাদ হোসেন। পৌর বিএনপির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন আবুল কাশেম ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন মজিবর রহমান মজি। সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন মোঃ সহিদুল ইসলাম সরদার।

এদিকে সম্মেলনকে জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি এ্যাডঃ আসলামপন্থী গ্রুপের সম্মেলন বলে আখ্যা দিয়েছেন অপরাংশের নেতা-কর্মীরা। 

জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়াম গ্রুপের এ নেতাকর্মীরা সম্মেলনকে অবৈধ ও অগঠনতান্ত্রিক দাবি করে একে বয়কট করেন।এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে অনেক রাত পর্যন্ত সম্মেলনকে ঘিরে উভয় গ্রুপ শহরে মোটর সাইকেল শোডাউন দেয়।

একই সময়ে তারা কয়েকশ নেতাকর্মী গোয়ালন্দ বাসস্ট্যান্ডে সমবেত হয়ে নানা ধরনের স্লোগান দেন। এ সময় বক্তব্য রাখেন উপজেলা বিএনপির একাংশের আহবায়ক সুলতান নুর ইসলাম মুন্নু মোল্লা, সদস্য সচিব নাজিরুল ইসলাম তিতাস,যুবদল নেতা মুরাদ আল রেজা প্রমূখ। 

সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শামা ওবায়েদ বলেন, ” অনেকেই সম্মেলনে উপস্হিত হননি। তারা মনে রাখবেন, দেশের  গনতন্ত্র ও নির্বাচন ব্যবস্থা হরন করা হয়েছে। আমাদের নেত্রী, তিনবারের প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে আসতে দেয়া হচ্ছে না।

এমতাবস্থায় আমাদের নিজেদের মধ্যেকার বিভেদ ভুলে দলকে শক্তিশালী করতে হবে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করে সরকারের পতন ঘটাতে হবে। এর জন্য ঐক্যের কোন বিকল্প নেই।

তিনি আরও বলেন, “সরকার বিদ্যুৎ খাতে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করেছে।যে কারনে তাদের ভাষায় ‘জাদুঘরে পাঠানো লোডশেডিং  আজ দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে ফিরে এসেছে’। দেশের মানুষের হাতে এখন হারিকেন ও মোমবাতি। ঘরে ঘরে আজ বেকারত্ব। চাকরি নেই, কাজ নেই,ভাত নেই। জুলুমবাজ এই সরকারকে আমাদের হঠাতে হবে।দেশকে রক্ষা করতে হবে।

(Visited 201 times, 1 visits today)