রাজবাড়ীর পদ্মা নদীতে হাউজ বোটে ডাকাতির কথা স্বীকার করলো রাকিব –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম : 

পদ্মা নদীর রাজবাড়ী অংশে খনন কাজে নিযুক্ত কোম্পানীর দুইটি হাউজ বোটে ডাকাতি কথা স্বীকার করেছে গ্রেপ্তারকৃত রাকিব শাহ (২৫)। রাকিব জেলার পাংশার চরদুর্লভদিয়া গ্রামের আকমল শাহ-এর ছেলে। তাকে গত শুক্রবার রাজবাড়ীর আদালতে সোর্পদ করা হয়। আবু হাসান খায়রুল্লাহ-এর আদালতে রাকিব শাহ ওই ডকাতির সাথে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করে। সেই সাথে ডাকাতির সাথে সম্পৃক্তদের নাম ও পরিচয় প্রকাশ করে বলে জানিয়েছেন এ ডাকাতি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও রাজবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আরো বলেন, রাকিবের কাছ থেকে লুণ্ঠিত একটি মোবাইল ফোনও উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে গত বৃহস্পতিবার রাতে জেলার পাংশা পৌরসভার মৈশালা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।
এ ডাকাতি মামলার বাদী ও খনন কাজে নিযুক্ত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ডিবিএল ড্রেজিং লিমিটেডের সাইট ইঞ্জিনিয়ার মোঃ আনিছুর রহমান বাদী জানান, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর তত্বাবধানে পদ্মা নদীর ৮ কিলো মিটার এলাকায় খনন কাজ পরিচালিত হচ্ছে। ইতোমধ্যে তিন কিলো মিটার নদী খনন শেষও হয়েছে। এখন পুরোদমে চলছে খনন কাজ। নৌবাহিনীর কাছ থেকে তাদের প্রতিষ্ঠান ডিবিএল ড্রেজিং লিমিটেড সাব কন্ট্রাক নিয়ে কাজ করছে। বর্তমানে তারা খনন করছেন রাজবাড়ী সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের সিলিমপুর এলাকার মাঝ পদ্মা নদীতে। সেখানে ড্রেজার মেশিনে কাজ করতে মতিন-১ ও মতিন-২ নামে দুইটি হাউজ বোট রয়েছে। ওই বোটে তিনিসহ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা ও ২০ জন শ্রমিক রাত্রি যাপন করেন। গত ২৪ জানুয়ারী রাত ২টার দিকে প্রথমে ৩জন ডাকাত একটি ইঞ্জিন চালিত ট্রলারে মতিন-২ হাউজ বোটে আসে এবং ওই বোটের পাহারাদার মাসুদ রানাকে বলে তারা জেলে, তাদের ট্রলারের স্যালো ইঞ্জিনের তেল শেষ হয়ে গেছে, একটু তেল দিতে। ওই সময় তেল ড্রেজারে আছে বললেও ডাকাতরা দ্রæততার সাথে ওই বোটে উঠে মাসুদ রানা কে জিম্মি করে। সেই সাথে আরো দুইটা ট্রলারে ৮ জন মুখোশ পড়াসহ ২২ জন ডাকাত আসে, তারা ওই দুটি বোট ঘিরে সকলকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে প্রায় ৩৫ মিনিট লুটপাট চালায়। ডাকাতরা তাদের কাছ থেকে এক লাখ ১৯ হাজার ৬শত ৬০ টাকা মূল্যের ১৩টি মোবাইল ফোন এবং নগদ ৬০ হাজার টাকা ও অন্যান্য মালামাল ছিনিয়ে নিয়ে চম্পট দেয়।

(Visited 196 times, 1 visits today)