পুনর্বাসন হতে চলেছেন গোয়ালন্দে নদী ভাঙনের শিকার প্রায় ৭শ পরিবার –

শামীম শেখ, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম : 
নদী ভাঙনে সাজানো সংসার তছনছ হয়ে গেছে। অসহায় লতা বেগম (২৮) স্বামী ও দুটি অবুঝ কন্যা সন্তান নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন দৌলতদিয়া মহাসড়কের পাশে বাহার নামে এক ব্যক্তির রান্না ঘরে। সেখানেই গত দেড় মাস ধরে কোন মতে মাথা গুজে আছেন। নদী ভাঙনে সর্বস্ব হারাদের পুনর্বাসনের লক্ষে তালিকা হচ্ছে শুনে রবিবার দুপুরে হন্তদন্ত হয়ে তিনি ছুটে আসেন দৌলতদিয়া মডেল হাইস্কুলের মাঠে।
তালিকা প্রস্তুত কাজে ব্যাস্ত গোয়ালন্দ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) আব্দুল্লাহ আল মামুনের কাছে তুলে ধরেন তার দুরবস্থা। দুরবস্থার বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি কেঁদে ফেলেন। এ সময় সহকারী কমিশনারসহ উপস্থিত সাংবাদিকরাও আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।
জানা গেছে, এ বছর ভয়াবহ নদী ভাঙনের শিকার হয়ে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম ও ফেরি ঘাটসহ আশপাশ এলাকার ৬৭১টি পরিবার সর্বস্বহারা হয়। এদের মধ্যে সামর্থবান কেউ কেউ ইতিমধ্যে অন্যত্র জমি কিনে কোনমতে বাড়ীঘর করতে পেরেছেন। তবে বেশীরভাগই এখনো বিভিন্ন উচু রাস্তা, রেল ও মহাসড়ক, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিংবা আত্মীয় স্বজনের বাড়ীতে এরা খুবই মানবেতর অবস্থার মধ্যে আছেন। এ বিষয়ে গত ৭ অক্টোবর যুগান্তরে “ঘর হারিয়ে উদ্বাস্তু জীবন, গোয়ালন্দে পদ্মার ভাঙন” শিরোনামে সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়।
সরেজমিন আলাপকালে সহকারী কমিশনার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা লতা বেগমদের মতো প্রকৃত অসহায়দের খুঁজে বের করতে আজ (রবিবার) থেকে আজ থেকে বাছাই প্রক্রিয়া শুরু করেছি। দৌলতদিয়া মডেল হাইস্কুল মাঠ, হেলিপ্যাড মাঠ, লঞ্চ ও ফেরিঘাট, রেল সড়ক, মহাসড়ক, দেবগ্রাম আরপিডিএস’র আশ্রয় ভিটা, আতর চেয়ারম্যানের বাজারসহ প্রত্যেকটি জায়গায় যেখানে নদী ভাঙন কবলিতরা কোনমতে মাথা গুজে আছেন তিনি যাবেন। খুঁজে বের করবেন অসহায়দের। তিনি আরো বলেন, তালিকা প্রস্তুত কাজে যাতে কোন অনিয়ম না হয় কিংবা প্রকৃত কোন অসহায় পরিবার বাদ না পড়ে সে জন্য এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবায়েত হায়াত শিপলু জানান, নদী ভাঙনের শিকার পরিবারগুলোর মধ্যে যাদের বিকল্প জমি আছে সরকারীভাবে তাদেরকে ওই জমিতে ঘর তুলে দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। এ ছাড়া যাদের জমি নেই তাদের সরকারী খাস জমি বন্দোবস্তসহ ঘর তুলে দেয়া হবে। কোন পরিবার অসহায় অবস্থায় থাকবে না বলে তিনি দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

(Visited 91 times, 1 visits today)