স্বামীর নির্যাতনে রাজবাড়ীর বাক প্রতিবন্ধী গৃহবধু সাজেদা হাসপাতালে –

রুবেলুর রহমান, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

বাক প্রতিবন্ধী গৃহবধু সাজেদা বেগমকে নির্মম ভাবে পিটানোর অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী লিটন শেখের বিরুদ্ধে। প্রতিবন্ধী ওই গৃহবধু বর্তমানে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের বেডে শুয়ে যন্ত্রণায় কাত্রাচ্ছেন। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ী সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নে মেছোঘাটা গ্রামে। গৃহবধু সাজেদা বেগম মোছোঘাটা এলাকার দুলাল শেখের ছেলে লিটন শেখের স্ত্রী।
গতকাল শুক্রবার দুপুরে সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখাযায়, হাসপাতালের দ্বিতীয় তলার পেইন বেডে শরীরের বিভিন্নস্থানের আঘাতের যন্ত্রণায় কাত্রাচ্ছে এক বাক প্রতিবন্ধী গৃহবধু। যাকে তার স্বামী লিটন শেখ নির্মম ভাবে পিটিয়েছেন বলে অভিযোগ ওই বাক প্রতিবন্ধী পরিবারের।
ইশারায় গৃহবধু সাদেজা বেগম বুঝানোর চেষ্টা করেন, তার স্বামী প্রায়ই তাকে নির্যাতন করেন। অনেক রাতে বাসায় ফেরেন, তখন চোখ লাল থাকে। এবার তার পিঠে, হাতে, ঘাড়ে, পায়ের উড়ুসহ বিভিন্নস্থানে আঘাত করেছেন। সেসব স্থানে প্রচন্ড্র যন্ত্রণা করছেন। যে কারণে ভাল ভাবে শুতে ও বসতে পারছেন না। এক পর্যায়ে আবেক আপ্লুত হয়ে বুঝাতে চান তিনি যে প্রতিবন্ধী ভাতা হিসেবে মাসে পাওয়া ২ হাজার ১শত টাকা পান, সে টাকাও তার স্বামী নিয়ে যায়। দুইটি সন্তান রয়েছে তার।
তার বড় বোন ছাহেলা বেগম জানান, বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় তার বোনকে কারণে অকারণে মারধোর করে আসছে তার স্বামী লিটন। কয়েকদিন আগে তার বোনকে মারধোর করলে বিনোদপুরের ভাইয়ের বাড়ীতে চলে আসে। মারধোরের কারণে গতকাল গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। তার সারা শরীরে আঘাত করা হয়েছে। এখন সে হাসপাতালের বেডে যন্ত্রণায় কাত্রাচ্ছে। তার বোন কথা বলতে পারেন না বিধায় অনেক কিছু বলতে পারছে না।
তার ভাই রাজ্জাক জানান, প্রায় ১০ থেকে ১১ বছর আগে তার বাক প্রতিবন্ধী বোনকে বিয়ে দেন লিটন মোল্লার সাথে। বিয়ের পর থেকে টাকার জন্য তার বোনকে নির্যাতন করা শুরু করে তার স্বামী। এ নিয়ে বহু বার মিমাংসার জন্য বসা হয়েছে, কিন্তু লিটন কোন কিছুই শোনে না। এর মধ্যে সে বিদেশে গিয়ে ফেরত আসে। বিভিন্ন সময়ে টাকার দাবী করে নির্যাতন করতে থাকে তার বোবা বোনের ওপর। নির্যাতনের শিকার হয়ে এখন সে হাসপাতালে ভর্তি। আসলে লিটন চায় এ ভাবে নির্যাতন করলে তার বাড়ী থেকে সাজেদা চলে আসবে। যে কারণে নির্যাতন চালাচ্ছেন। এছাড়া লিটন মাদক সেবনের সাথেও জরিত আছে। এখন যে অবস্থা তাতে একটা সিদ্ধান্তে আসতে হবে। তাই পরিবারে সবার সাথে আলোচনা করে একটা সিদ্ধান্ত নেবেন।
অভিযুক্ত (স্বামী) লিটন শেখ তার স্ত্রী নির্যাতনের কথা অস্বীকার করে জানান, তার স্ত্রী বর্তমানে তার বাবার বাড়ীতে আছে। এ কথা বলেই তিনি ফোন কেঁটে দেন। পরবর্তীতে তার ফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।
রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের চিকিৎসক মনি মন্ডল জানান, বাক প্রতিবন্ধী সাজেদা বেগমকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

(Visited 404 times, 7 visits today)