জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরুটে বন্ধ ফেরি চলাচল, ভাঙ্গাচোরা লঞ্চ দিয়ে চলছে যাত্রী পারাপার –

রুবেলুর রহমান, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

পদ্মা নদীর তীব্র স্রোতের কারণে ১৫ দিনেও চালু হয়নি রাজবাড়ী ধাওয়াপাড়ার জৌকুড়া ও পাবনার নাজিরগঞ্জ নৌরুটে ফেরি চালাচল।
এতে করে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে এ রুট দিয়ে পারাপার হওয়া যানবাহন ও যাত্রীরা। তবে ঝুঁকি নিয়ে এরুটে ছোট দুইটি ভাঙ্গাচোরা লঞ্চ ও কয়েকটি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার দিয়ে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। এছাড়া পদ্মার পানি বৃদ্ধিতে পন্টুনের সামনের অংশে পানি ওঠায় বাঁশের মাচালী ও বস্তার উপর দিয়ে যাত্রীরা পন্টুনে ওঠা-নামা করছে।
এরুটে পারাপার হওয়া যাত্রী ও যানবাহনের চালকদের অভিযোগ এ রুটে দুইটি ছোট ইউটিলিটি ফেরি চলাচল করে। যা অনেক পুরাতন। একটু স্রোত হলে আর চলতে পারে না। তাই এ রুটে নতুন শক্তিশালী ফেরি দিলে তাদের ভোগান্তিতে পড়তে হতো না। এছাড়া এক রকম বাধ্য হয়ে ঝুকি নিয়ে ভাঙ্গাচোরা লঞ্চ ও ট্রলারে পারাপার হচ্ছেন।
তবে লঞ্চ ঘাট ম্যানাজারের দাবী লঞ্চ মেরামত করা হয়েছে এবং ধারন ক্ষমতার কম যাত্রী নিয়ে নদী পারাপার করা হচ্ছে যাত্রীদের। ফেরি বন্ধ থাকায় যাত্রীদের কথা ভেবে লঞ্চ ও ইঞ্জিন চালিত নৌকা দিয়ে যাত্রী পারাপার করছেন।
জানাগেছে, হঠাৎ পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধির সাথে দেখা দিয়েছে তীব্র স্রোত। যে কারণে ২১ সেপ্টেম্বর থেকে জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ফেরি দুইটি অনেক পুরাতন হওয়ায় স্রোতের বিপরীতে চলতে পরেছে না। সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে পরিচালিত হয় এ রুটে ফেরি চলাচল। ফেরি চলাচল বন্ধ থাকার বিষয় নিয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগ যাত্রী ও যানবাহনের পারাপারে বিকল্প রুট ব্যবহারে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছেন। তবে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকলেও স্রোতের মধ্যে চলছে লঞ্চ ও ইঞ্জিন চালিত ট্রলার (নৌকা)।
রাজবাড়ী সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী কেবিএম সাদ্দাম হোসেন জানান, পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধির পাশাপাশি স্রোতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ রুটে ফেরি চলাচল ঝুকিপূর্ণ হওয়ায় ২২ সেপ্টেম্বর থেকে এরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়। স্রোতের তীব্রতা ও পানি কমে আসলে পুনরায় ফেরি চলাচল শুরু করানো হবে।
উল্লেখ্য, এর আগে গত আগষ্ট মাসের শেষ সপ্তাহে একই কারণে এরুটে ৫ দিন ফেরি চলাচল বন্ধ ছিলো এরুটে।

(Visited 37 times, 1 visits today)