বালিয়াকান্দির ৪২ পরিবার পেলো টিনসেট ওয়াল ঘর –

সোহেল রানা রাজবাড়ী বার্তা ডট কম : ,

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে “জমি আছে ঘর নেই” তাদের বিনা খরচে ঘর তৈরির একটি প্রকল্প গ্রহন করে। সারা দেশে জরিপ শেষে ঘর তৈরির সিদ্ধান্ত হয়। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষন (টিআর) কর্মসূচির আওতায় গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় বাসস্থান কাজ শুরু হয়েছে। রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলায় এমন ৪২ জনের ঘর তৈরি করে দেওয়ার কাজ চলছে।
ঘর পাওয়া লোকজন বলেন, পাটকাঠির বেড়া দিয়ে কোনো রকমে তারা ঘর বানিয়ে থাকতেন। বৃষ্টি হলে ঘরের ভেতরে পানি পড়ত আর শীতের দিনে হু হু করে ঢুকত হিম হাওয়া। কৃষিকাজে শ্রম বিক্রি করে চলে তাদের সংসার। সংসার চালাতেই তাঁদের হিমসিম খেতে হয়, সেখানে নতুন ঘর নির্মাণের কথা তারা কল্পনাও করতে পারছেন না। এরই মাঝে সরকারিভাবে তাদের জমিতে ঘর তৈরি হয়েছে। এতে তারা মহা খুশি। ঘর তৈরি করে দেওয়ায় তিনি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। প্রধানমন্ত্রী তাদের ঘরের ব্যবস্থা করেছেন এ জন্য তিনি খুবই আনন্দিত।
নারুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুস সালাম মাষ্টার, নবাবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আবুল হাসান আলী, জামালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইউনুছ আলী সরদার বলেন, চাহিদার তুলনায় খুব কম ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। তাঁদের ইউপিতে যে পরিমাণ গরিব, অসহায়, দুস্থ পরিবার আছে আরো বেশিসংখ্যক ঘর বরাদ্দ দেওয়ার দরকার ছিল। হতদরিদ্ররা ঘরের দাবি নিয়ে তাদের কাছে আসছে এবং তারা বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হচ্ছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে জানাগেছে, জমি আছে ঘর নেই প্রকল্পের আওতায় ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষন ( টিআর) কর্মসূচির আওতায় গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় বাসস্থান নির্মাণ কাজ বালিয়াকান্দি উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ৬টি করে টিনসেট ওয়াল ৪২টি বসতঘর নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। উপজেলায় কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং সদস্যরা হলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি), উপজেলা প্রকৌশলী, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নগুলোর চেয়ারম্যান। কাজ প্রায় ৯০% সম্পন্ন হয়েছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নাসরিন সুলতানা বলেন, ৭টি ইউনিয়নে ৪২টি টিনসেট ওয়াল ঘর ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষন ( টিআর) কর্মসূচির আওতায় গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় বাসস্থান নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। প্রায় ৯০% কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাঁকী কাজ শেষ হওয়ার পর আনুষ্ঠানিক ভাবে চাবি হস্তান্তর করা হবে। মানসম্মত কাজ করতে সব সময়ই তদারকি করা হচ্ছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইশরাত জাহান বলেন, প্রধানমন্ত্রী গৃহহীন মুক্তকরণের যে ঘোষণা দিয়েছেন, সেই ঘোষণারই বাস্তবায়ন চলছে। যেসব দরিদ্র পরিবারের জমি আছে অথচ টাকার অভাবে ঘর নির্মাণ করতে পারছে না সেসব পরিবারের জন্য টিনসেট ওয়াল ঘরের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আশা করছি এ মাসের মধ্যেই কাজ সম্পন্ন হবে।

(Visited 40 times, 1 visits today)