বানিবহ ইউপি আ:লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত, ভোটের মাধ্যমে হবে সভাপতি ও সম্পাদক –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

রাজবাড়ী সদর উপজেলার বানিবহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে প্রতিটি পদের বিপরীতে একাধিক প্রার্থী থাকায় চুরান্ত হয়নি সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক। বৃহস্পতিবার বিকালে ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গনে এ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়।
ভোটের তারিখ নির্ধারন করে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ভোটের মাধ্যমে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক চুরান্ত করা হবে বলে জানান প্রধান অতিথি কাজী ইরাদত আলী।
কাউন্সিল অধিবেশনের প্রথম পর্বের আলোচনা সভায় বানিবহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল লতিফ মিয়ার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতিে এ্যাড: গনেশ নারায়ণ চৌধুরী, যুগ্ম-সম্পাদকে এ্যাড: সফিকুল আজম মামুন, দপ্তর সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাচ্চু, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদকে ্যাডঃ সফিকুল হোসেন, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড: উমা সেন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক শেখ মোঃ ওহিদুজ্জামান, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাকারিয়া মাসুদ রাজীব প্রমূখ।
সভা শেষে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সকল পদ বিল্লুপ্ত এবং নতুন কমিটি ঘোষনা করা হয় । অধিবেশনের দ্বিতীয় পর্বে সভাপতিত্ব করেন সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ রমজান আলী খান।
কাউন্সিলে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে আব্দুল লতিফ মিয়া, কাজী তোফাজ্জেল হোসেন তপু, মোঃ আজিজুল হক খান স্বপন ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রাজ্জাক মন্টু এবং সাধারন সম্পাদক পদে মোঃ আব্দুল কাইয়ুম মিয়া, মোঃ জাকির হোসেন ও মোঃ ইউনুছ আলী মোল্লা প্রতিদ্বন্দী করেন।
পরবর্তীতে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের পদ চাওয়াকারীদের মধ্যে সমন্ময় না হওয়ায় ভোটের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।
সভায় জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সাইফুল ইসলাম এরশাদ, সদর ছাত্রলীগের সভাপতি সামছুল ছালেহীন অপুসহ জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথি কাজী ইরাদত আলী বলেন, ১৯৭৫ সালে স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি বঙ্গবন্ধুসহ তার পরবিারকে হত্যা করে। সেই সময় আল্লাহর অশেষ রহমতে বেঁচে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার বোন। বিএনপি জামায়াত আওয়ামী লীগকে নের্তৃত্ব শূন্য করতে অনেক চক্রান্ত করেছে। তারা ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে দেশে কোন উন্নয়ন হয়নি। কৃষক আমাদের প্রান, সেই কৃষক তখন সারের জন্য হাহাকার করেছে। কিন্তু এখন দেশে কোন সংকট নাই। উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে দেশ। নৌকাকে বুকে ধারন করে আওয়ামী লীগ এগিয়ে যাচ্ছে এবং যাবে। নৌকার পরাজয় মেনে নেওয়া যায় না । বিগত দিনে যারা নৌকাকে হারিয়েছে তারা নৌকার সমর্থক বা কর্মী হতে পারে না। জননেত্রী শেখ হাসিনা তার জীবনকে বাজি রেখে বিশ্বের বুকে বাংলাদেশকে অন্যন্ন উচ্চতায় নিয়ে গেছে। সেই নেত্রীকে বহুবার হত্যার চেষ্টা করেছে বিএনপি জামায়াত। খালেদা জিয়ার নির্দেশে তারেক রহমান ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিল। হামলায় তাদের উদ্দেশ্যে সফল হয়নি। এ কাউন্সিলের মাধ্যমে আগামীর জন্য আপনারা নৌকার নিবেদিত প্রানকেই নৌকার কর্মী হিসেবে নির্বাচিত করবেন।

(Visited 224 times, 1 visits today)