শিক্ষকবিহিন রাজবাড়ীর সরকারী শিশু পরিবারের ৯৩ এতিম –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

রাজবাড়ী সরকারী শিশু পরিবার (বালিকা) এতিমখানাটি এখন নানা সমস্যায় জর্জরিত। তবে এর প্রধান সমস্যা শিক্ষকসহ জনবলের। সহকারী শিক্ষককের দুইটি পদের দু’টিই শূন্য থাকায় এতিম শিক্ষার্থীরা পড়াশোনায় পিছিয়ে যাচ্ছে।
জানাগেছে, ১০০ শয্যার এই এতিম খানাটি ১৯৭২ সালে রাজবাড়ী শহরের বিনোদপুর লোকেসেড এলাকায় স্থাপিত হয়। এ প্রতিষ্ঠানের শিশুরা বরাবরেরমত ২৬ শে মার্চ ও ১৬ ডিসেম্বরের কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লেতে জেলা সেরা হয়ে থাকে। পড়াশোনায়ও এদের ফলাফল সন্তোষ জনক। বর্তমানে এখানে শিশু ৮জন, প্রথম শ্রেণীর ছাত্রী ৭ জন, দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ৭ জন, তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ২০ জন, চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী ৭ জন, পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী ৬ জন, ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী ৫ জন, সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী ১০ জন, অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী ৯ জন, নবম শ্রেণীর ছাত্রী ১২ জন, দশম শ্রেণীর ছাত্রী ১ জন এবং একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী ১ জনসহ মোট ৯৩ জন রয়েছে। সেই সাথে এই প্রতিষ্ঠানের ১৯টি পদের মধ্যে সহকারী তত্ববধায়ক ১জন, সহকারী শিক্ষক ২জন, মেট্রোন কাম নার্স ১জন, কারিগরি প্রশিক্ষক ১জন, খালাআম্মা ১ জনের পদ শূন্য রয়েছে। এছাড়া অফিস সহায়ক ১ জন রয়েছেন ডেপুটেশনে অন্যত্র। যদিও দীর্ঘ এক বছর শূন্য থাকার পর গত ৩০ জুন এখানে যোগদান করেছেন উপ-তত্তাবধায়ক।
এখানকার শিক্ষার্থীরা জানায়, তারা নিয়মিত ভাবে স্কুল ও কলেজে যাতায়ত করলেও শিশু পরিবারের এসে পড়াশোনা করতে অসুবিধা হয়। আগে এখানে দুইজন সহকারী শিক্ষক ছিলো। তবে এখন না থাকায় তাদের বাইরে প্রাইভেট শিক্ষকের কাছে যেতে হচ্ছে। তারা জরুরী ভিত্তিতে শিশু পরিবারে শিক্ষকসহ অন্যান্য পদের লোকবল দেবার অনুরোধ করেন।
নবাগত উপ-তত্তাবধায়ক শিপ্রা সরকার বলেন, তিনি এখানে যোগদান করেই এই সব সমস্যা গুলো চিহ্নিত করেছেন। ইতোমধ্যে বিষয়টি উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকেও জানিয়েছেন। আশা করছেন দ্রুত সময়ের মধ্যে এ সমস্যা কেটে যাবে।

(Visited 50 times, 1 visits today)