গড় পাসে রাজবাড়ীর সব গুলো সরকারী কলেজ পিছিয়ে, কয়েকটি কলেজের চিত্র আরো ভয়াবহ –

রুবেলুর রহমান, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

আজ বুধবার উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। রাজবাড়ীতে ২৮টি কলেজ রয়েছে, এর মধ্যে ৬টি কলেজ হলো সরকারী। ওই ফলাফলে দেখা গেছে গড় পাসের দিক দিয়ে রাজবাড়ী সব গুলো সরকারী কলেজের অবস্থা নাজুক। এবারের ফলাফলে রাজবাড়ীতে পাসের গড় হার ৫২.০৬ শতাংশ। আর পুরো জেলায় জিপিএ-৫ পাঁচ পেয়েছে ৪৫ জন শিক্ষার্থী।
এর মধ্যে গড় পাশের হারের দিক দিয়ে এগিয়ে রয়েছে পাংশার কলিমহর জহুরুন্নেছা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। কলেজটি থেকে ৮৯ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৭২ জন কৃতকার্য হয়েছে এবং গড় পাশের হার ৮০ দশমিক ৯০ শতাংশ। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বালিয়াকান্দির বহরপুর কলেজ। ২৪৮ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে কৃতকার্য হয়েছে ১৯৩ জন ও জিপিয়ে পাঁচ পেয়েছে ৩ জন শিক্ষার্থী। গড় পাশের হার ৭৭ দশমিক ৮২ শতাংশ। এদিকে ৭২ দশমিক ২৮ শতাংশ পাশের হাড় নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে রাজবাড়ী সরকারী কলেজ। যার ১৪৯৭ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ১০৮২ জন কৃতকার্য হয়েছে এবং জিপিয়ে পাঁচ পেয়েছে ২৫ জন।
এছাড়া জিপিয়ে পাঁচ প্রাপ্তের দিক দিয়ে সরকারী কলেজ গুলো এগিয়ে থাকলেও গড় পাশের হাড় রাজবাড়ী সরকারী কলেজ (৭২.২৮), সরকারী আদর্শ মহিলা কলেজ (৫৪.৬০), পাংশা সরকারী কলেজ (৪৬.০০), সদ্য সরকারী হওয়া গোয়ালন্দ কামরুল ইসলাম কলেজ (৪৭.১০), কালুখালী কলেজ (২৮.৮১) ও বালিয়াকান্দি কলেজ (৭০.২৫) শতাংশ।
তবে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা গোয়ালন্দের বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জব্বার কলেজের। এ কলেজ থেকে পরীক্ষা দিয়েছে ২৮ জন, এর মধ্যে পাস করেছে মাত্র ২ জন। পাংশার কাঁচারীপাড়া কলেজ থেকে পরীক্ষা দিয়েছে ১০ জন, পাস করেছে মাত্র ২ জন। বরাট ভাকলা স্কুল এ্যান্ড কলেজ থেকে পরীক্ষা দিয়েছে ৫৪ জন, পাস করেছে ১৪ জন, মাছপাড়া কলেজ থেকে পরীক্ষা দিছে ২২০ জন, পাস করেছে ৬৩ জন, জেলা শহরের অংকুর স্কুল এ্যান্ড কলেজ থেকে পরীক্ষা দিছে ১০৭ জন, পাস করেছে ১৩ জন এবং ডাঃ আবুল হোসেন কলেজ থেকে পরীক্ষা দিছে ৫২৮ জন, আর পাস করেছে মাত্র ১২৮ জন।
গতকাল বুধবার দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আলমগীর হুসাইন এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষকদের কাছে হন্তান্তর করেন। অপরদিকে, জেলার মাদরাসা শিক্ষায় গড় পাশের হার ৮৯ দশমিক ০৪ শতাংশ এবং জিপিয়ে পাঁচ ৩টি।
রাজবাড়ী সরকারী আদর্শ মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর দীলিপ কুমার কর বলেন, তার প্রতিষ্ঠানে ফলাফল আশানুরুপ না হবার মুল কারণ শিক্ষক স্বল্পতা, নিম্নমানের ছাত্রী ভর্তি, নিয়মিত ছাত্রীরা কলেজে না আসা। তারপরও স্বল্প শিক্ষক নিয়ে রেজাল্ট ভালোর জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন। আগামীতে রেজাল্ট ভাল করতে আরো সচেতন হবেন এবং ভাল রেজাল্টও করবেন বলে আশাবাদী তিনি।জেলা শিক্ষা অফিসার শামসুর নাহার জানান, যে সব কলেজ খারাপ করেছে, তাদের ব্যাপারে সরকারী নির্দেশার আলোকে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

(Visited 681 times, 1 visits today)