স্ত্রী ও শ্বাশুড়ীকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালো স্বামী –

নজরুল ইসলাম, রাজবাড়ী বার্তা ডট কম : 

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের পশ্চিম নলডুবি গ্রামে যৌতুকের টাকা না পেয়ে স্ত্রী ও শ্বাশুড়ীকে শারিরীক মারপিটের ঘটনা ঘটিয়েছে মেয়ে জামাই মনোয়ার সরদার (২৮)।
গত শুক্রবার বিকালে এ ঘটনায় গোয়ালন্দ উপজেলার ছোট ভাকলা ইউনিয়নের স্বরুপারচক গ্রামের আ: ছালাম শেখ(৪৮) বাদী হয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় মেয়ে জামাই মনোয়ার সরদার সহ ৪জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে।
মারপিটে আহত অবস্থায় স্ত্রী মোছা. মারুফা বেগম (২২) ও শ্বাশুড়ী মালেকা বেগম গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত দুই বছর পূর্বে গোয়ালন্দ উপজেলার পশ্চিম নলডুবি গ্রামের মোশারফ সরদারের ছেলে মনোয়ার সরদার(২৮) এর সাথে স্বরুপারচক গ্রামের আ: ছালাম শেখের মেয়ের বিয়ে হয়।
গত ৯ জুন আমার মেয়ে মারুফাকে মারপিট করে মেয়ে জামাই মনোয়ার সরদার দেড় লক্ষ টাকা যৌতুকের টাকা দাবী করে আমার বাড়ীতে তাড়িয়ে দেয়। মেয়ের সুখের কথা ভেবে ১০জুন আমি ১লক্ষ টাকা যোগার করে মেয়েকে স্বামীর বাড়ী রেখে আসি। এরপর গত ১৮ জুন সকাল ১০টার দিকে আমার মেয়েকে বাকী ৫০ হাজার টাকার জন্য মারপিট করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলা ফোলা জখম করে। স্থানীয়দের সংবাদ মোতাবেক ২০ জুন আমার স্ত্রী (মেয়ের মারুফার মা) মালেকা বেগম মেয়ে জামাইয়ের বাড়ীতে গেলে মেয়ে জামাইয়ের বাড়ীতে গেলে মেয়ে জামাই মনোয়ার যৌতুকের টাকা না পেয়ে উত্তেজিত হয়ে আমার স্ত্রীকে বেধরক মারপিট করে আরো ৫০ হাজার টাকার দাবী করেএবং আমার মেয়েকে ঘরে আটকিয়ে রাখে। আমার স্ত্রী জখম হয়ে আহত অবস্থায় বাড়ীতে আসলে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। মেয়েকে আটক রাখার খবর পেয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশকে জানালে তালাবদ্ধ অবস্থায় আমার মেয়েকে উদ্ধার করে থানা পুলিশ। মেয়েকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে গোয়ালন্দ ঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ এজাজ শফী জানান, উপরোক্ত ঘটনায় মারুফা বেগম ও তার মা মালেকা বেগমকে শারিরীক ভাবে নির্যাতন ঘটনায় গত শুক্রবার বিকালে ছালাম শেখ বাদী হয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় মামলা দায়ে করেছেন।

(Visited 47 times, 1 visits today)