রাজবাড়ী শহরের খালু বাড়ীতে বেড়াতে এসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী হলো লাশ –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম : 

রাজবাড়ী জেলা শহরের ভাবানীপুরের খালু বাড়ীতে বেড়াতে এসে বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী স্বর্ণা দাস (২৪) লাশ হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। স্বর্ণা গাজীপুর জেলার টঙ্গী এলাকার বলরাম দাসের মেয়ে এবং রাজধানী ঢাকার উত্তরা বিশ^বিদ্যালয়ের বিবিএ’র ছাত্রী।
জানাগেছে, রাজবাড়ী জেলা শহরের ভাবানীপুরের জনৈক রবিন্দ্রনাথ সাহার বাড়ীতে ভাড়া থাকেন কৃষিসম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ কুমার বিশ্বাস। সুবোধের স্ত্রী মুক্তি বিশ^াস ক্যান্সারে আক্রান্ত একজন রোগী। তাদের একমাত্র ছেলে আকাশ বিশ্বাস পড়াশোনা করেন ভারতের একটি কলেজে। মা’য়ের অসুস্থতা বৃদ্ধির খবরে আকাশ গত শুক্রবার দেশে ফেরেন। আর একই খবরের ভিত্তিতে গত শনিবার দুপুরে খালাকে দেখতে আসেন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী স্বর্ণা দাস ও তার নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া বোন অন্য দাস।
আজ দুপুরে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ কুমার বিশ্বাসের ভাড়া বাসায় এসে দেখাযায়, মেয়ের মৃত্যুর খবর শুনে এ বাড়ীতে আসা স্বর্ণার মা মালতি দাস তার ছোট মেয়ে অন্য দাসকে নিয়ে একটি ঘরের মেঝেতে আহাজারী করছেন। সে সময় অন্য দাস বলে, তারা অনেকটা খুশি মনে অসুস্থ খালাকে দেখতে আসে। গত শনিবার রাতেও তার বোন স্বর্ণা ছিলো হাঁসি খুশি। তবে গত রবিবার সকাল থেকেই স্বর্ণা ছিলো মনমরা। দুপুর এবং রাতেও সে কিছু খায়নি। রাতে তারা দুই বোন একটি রুমে শুয়ে ছিলো। রাত ১১টার দিকে হঠাৎ করেই ঘরের মধ্যে কথার শব্দ পায় সে। ওই সময় ঘুম থেকে উঠে দেখে স্বর্ণার মরদেহ ঘরের আড়ার সাথে কাপড়ের সাথে ঝুলছে। ওই সময়ই তার খালু উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ কুমার বিশ^াস স্বর্ণাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত ডাক্তার তারেক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন।
রাজবাড়ী থানার এসআই নাজমুল আলম বলেন, আজ সকালে রাজবাড়ী হাসপাতালের ওয়াশ রুমে থাকে স্বর্ণার মরদেহের তিনি সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করেছেন। সেই সাথে লাশটি ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছেন। ঘটনাটি রহস্যজনক। যে কারণে স্বর্ণা আত্নহত্যা করেছে না কি তাকে হত্যা করা হয়েছে তা ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পাবার পরই তিনি বলতে পারবেন।

(Visited 2,507 times, 1 visits today)