কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ১৮ জুন- কেন্দ্রপানে চেয়ে আছেন আ:লীগের ৯ চেয়ারম্যান প্রার্থী –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

পঞ্চম ধাপে আগামী ১৮ জুন অনুষ্ঠিত হবে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। ইতোমধ্যে ওই নির্বাচন নিয়ে শুরু হয়েছে প্রচার প্রচারনা। কোন কোন প্রার্থী দীর্ঘ দিন পর ফিরেছেন এলাকায়। তারাও যাচ্ছেন ভোটারদের কাছে। এদিকে, বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের তেমন কোন নাম শোনা না গেলেও আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেতে সম্ভব্য চেয়ারম্যানপ্রার্থীরা তৎপর। ইতোমধ্যে কেন্দ্র থেকে দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ৯জন চেয়ারম্যান প্রার্থী।
দলীয় সূত্রে জানাগেছে, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও সাওরাইল ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম (আলী), উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও রতনদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী হাচিনা পারভীন, উপজেলা আওয়ামীলীগের কোষাধ্যক্ষ মোঃ মোক্তার হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুজ্জামান সাগর, মদাপুর ইউপি আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এ বি এম রোকনুজ্জামান ও ন. আ. মু. জুলফিকার আলীসহ সাত জন প্রার্থীর নাম স্থানীয় আঃলীগ থেকে পাঠানো হয়েছে। এর বাইরে জেলা কৃষকলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুওে আলম সিদ্দিকী হক এবং কালুখালী উপজেলা আঃলীগের সাবেক যুগ্ন-আহবায়ক আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো কেন্দ্র থেকে দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।
দলীয় নেতা-কর্মী ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানাগেছে, আঃলীগের মনোনয়ন পেতে যে ৯জন প্রার্থী আবেদন করেছেন তার মধ্যে সক্রিয় রয়েছেন মূলত চার জন প্রার্থী। এই চার জন হলো উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম, জেলা কৃষকলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুওে আলম সিদ্দিকী হক, কালুখালী উপজেলা আঃলীগের সাবেক যুগ্ন-আহবায়ক আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো এবং রতনদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী হাচিনা পারভীন।
এই চার জনের মধ্যে নুরে আলম সিদ্দিকী হক ২০১১ সালে কালুখালীর মৃগী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে এবং ২০১৪ সালে কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে পরাজিত হন। আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো ও পর পর দুই বার কালুখালীর রতনদিয়া ইউনিয়নের নির্বাচনে পরাজিত হন। মেহেদী হাচিনা পারভীন বিগত নির্বাচনে প্রথমবারের মত কালুখালীর রতনদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী হন। আর বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম উপজেলা আঃলীগের সভাপতি হিসেবে তার নেতৃত্ব রেখেছেন গতিশীল। মাঠ পর্যায়ে সার্বক্ষণিক বিচরণ থাকায় দলীয় নেতা-কর্মী ও ভোটারদের মাঝে তার গ্রহণযোগ্যতা অনেকাংশে বেশি।
যদিও কাজী সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, দলীয় মনোনয়ন পেলেই শুধুমাত্র তিনি আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যানপদে প্রতিদ্বন্দীতা করবেন। তিনি আরো বলেন, গত ৪ মে উপজেলা আঃলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আঃলীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী-২ আসনের এমপি মোঃ জিল্লুল হাকিম। সভায় দলের সিংহ ভাগ নেতা-কর্মী তাকে দলীয় মনোনয়ন প্রদান করার জন্য অনুরোধ করেছেন। সেই সাথে গত ৫ মে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, দলীয় ইউনিয়নের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, বিভিন্ন বাজার বণিক সমিতির প্রধানরা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী বরাবর লিখিত আবেদন প্রদান করেছেন। তিনি ২০০১ সালের পর ৪ দলীয় জোট সরকার কর্তৃক মামলা, জেল ও বিভিন্ন নির্যাতনের শিকার হলেও তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করেছেন। ২০০৩ ও ২০১১ সালে তিনি আওয়ামীলীগের মনোনয়নে বিপুল ভোটে দুই বার মাজবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান ও ২০১৪ সালে কালুখালী উপজেলার প্রথম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন। এলাকার প্রতিটি উন্নয়নে তার ব্যাপক অবদান রয়েছে।
জেলা নির্বাচন অফিসার ও কালুখালী উপজেলা নির্বাচনের রিটানিং অফিসার হাবিবুর রহমান জানান, তৃতীয় ধাপে রাজবাড়ী সদরসহ জেলার পাংশা, বালিয়াকান্দি ও গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। অত্যান্ত সুষ্টু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ওই নির্বাচন তারা সম্পূর্ণ করেছেন। ফলে এ নির্বাচনের অভিজ্ঞাতা নিয়ে আরো সুন্দর এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশে কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২১ মে মনোনয়পত্র সংগ্রহের শেষ দিন। বাছাই ২৩ মে, ৩০ মে প্রত্যাহার এবং ১৮ জুন হবে নির্বাচন।

(Visited 1,048 times, 1 visits today)