দৌলতদিয়া ঘাটে অদৃশ্য শক্তির কালো ছায়া- ফেরী বাদ, ঘাট ব্যবহার করছে অবৈধ ব্যবসায়ীরা !-

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

দেশের দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ফেরী ঘাট। এখানে ফেরী ও ঘাট সমস্য নিত্য দিনের। তবে সুকৌশলে দৌলতদিয়া ৬টি ফেরী ঘাটের মধ্যে সচল ২নং ঘাট টিতে কর্মচারীর অভাব দেখিয়ে তা অবৈধ বলগেট ও ট্রলার ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে ব্যবহার করা হচ্ছে। যা ঘাট কেন্দ্রীক গড়ে উঠা অদৃশ্য চক্র নিয়ন্ত্রণ করে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। তবে দ্রুত সময়ের মধ্যে ওই ঘাটটি যাতে ফেরী চলাচলে ব্যবহার করা সম্ভব হয় তার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। গত বুধবার দুপুরে আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন উপলক্ষে রাজবাড়ী পুলিশ লাইনে অনুষ্ঠিত “প্রস্তুতিমূলক ও আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা”-এ নির্দেশনা প্রদান করা হয়।
ওই সভায় জেলা ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, দৌলতদিয়ায় ৬টি ফেরী ঘাট রয়েছে। এর মধ্যে ২নং ফেরী ঘাটটে অকার্যকর করে রাখা হয়েছে। সে ঘাটে ভেড়ানো হয় না কোন ফেরি। অথচ ঘাটটি পুরোপুরি সচল। যদিও ৪নং ফেরী ঘাটটিতে যারবাহন উঠানামায় প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। তার পরও অজ্ঞাত কারণে ২নং ফেরী ঘাটটি সচল না করে বরং কথিত ব্যক্তিরা ওই ঘাট দিয়ে সিমেন্ট বাহি বলগেট, ট্রলারসহ অন্যান্য নৌ-যান ভেড়ানো এবং তাতে আনা মালামাল লোড-আনলোড করা হচ্ছে।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সে সময় উপস্থিত বিআইডব্লিউটিএ-এর আরিচা ঘাটের সহকারী পরিচালক (ট্রাফিক) আরিফুল ইসলাম এবং অপর সহকারী পরিচালক মাসুদুল হক জানান, কোন রকম ইজারা নিয়ে নয়। কথিত ব্যক্তিরা ভুয়া ইজারা গ্রহণের কথা বলে অবৈধ ভাবে ওই ঘাট ব্যবহার করছে। তারা ঘাট ব্যবহার না করার জন্য ওই সব ব্যাক্তিদের পত্র প্রদানও করেছেন। তবে অদৃশ্য চক্রটি অত্যান্ত প্রভাবশালী হওয়ায় তারা পেরে উঠছেন না।
ওই ঘাট ব্যবহারকারীদের মধ্যে রয়েছে আকিজ গ্রুপের আকিজ সিমেন্ট। রাজবাড়ী আকিজ গ্রুপের সিনিয়র অফিসার আফজাল উদ্দিন একরাম লাবু জানান, ক্যারিং কন্ট্রাকটারের মাধ্যমে তারা তাদের কোম্পানীর সিমেন্ট আনেন। ফলে ক্যারিং কন্ট্রাকটারা কার মাধ্যমে কি ভাবে ২ নং ফেরী ঘাট ব্যবহার করে তাদের পন্য উঠানামা করাচ্ছে তা তিনি জানাতে পারে নি।
রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার আসমা সিদ্দিকা মিলি বিপিএম, পিপিএম বলেন, ঈদকে সামনে রেখে তারা ঘাট ব্যবস্থাপনা ঢেলে সাজানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। যেখানে প্রতিনিয়ত তাদের ফেরী ও ঘাট সমস্যার মধ্যে যানবাহন পারাপার করানো হয়, সেখানে সচল একটি ঘাট ফেরী কর্তৃপক্ষ ব্যবহার না করায় অসাধুচক্র বহাল তবিয়তে তা ব্যবহার করে অনৈতিক সুবিধা গ্রহণ করছে। আর তাদের ওই সুযোগ দেয়া হবে না। ২ নং ফেরী ঘাটটি এখন থেকে পুরো দমে সচল রাখতে বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষকে তিনি নির্দেশ দেন।

(Visited 394 times, 1 visits today)