কালুখালীতে মা-বাবাকে পিটিয়ে জখম করলো ছেলে ও তার স্ত্রী –

রাজবাড়ী বার্তা ডট কম :

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছেলে ও তার স্ত্রী, বাবা এবং মা’কে পিটিয়ে জখম করেছে। আহত মা ও বাবা কে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত শুক্রবার দুপুরে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মদাপুর ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
মাথায় জখম নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া আনিল চন্দ্র শুত্রধর (৭০) বলেন, তার ২ ছেলে ও ২ মেয়ে সন্তান রয়েছে। সন্তানদের সকলেই বিয়ে করেছে। বড় ছেলে বিনয় চন্দ্র শুত্রধর তার এক শিশু ছেলেকে নিয়ে একই বাড়ীর মধ্যে ভিন্ন ভাবে বসবাস করে। সাম্প্রতিক সময়ে ওই ছেলে প্রায় ৩ বছর দুবাই থেকে বাড়ী ফিরে আসে। সে আথিক ভাবে স্বচ্ছল হলেও বাবা ও মা’র প্রতি উদাসিন। উল্টা বিনয়ের স্ত্রী স্বর্ণা রানী কারণে অকারণে তাদের সাথে ঝগড়ায় লিপ্ত হয়। কয়েক দিন আগে বাড়ীর পেছনে একটি পরাতন বাশ পরে থাকতে দেখে তিনি বাঁশটির মাথার অংশ কেটে ঘরের সাথে লাগিয়ে রাখেন। গতকাল দুপুরে ওই বাঁশ খুজতে থাকে স্বর্ণা রানী। এক পর্যায়ে সে কাটা বাঁশ দেখে উত্তেজিত হয়ে পরেন এবং তাদেরকে অশ্লিল ভাষায় গালাগাল করতে থাকেন। তিনি নতুন একটা বাঁশ কিনে দিতে চাইলেও সে শান্ত না হয়ে উল্টা তার স্বামী বিনয়কে ডেকে আনেন। এক পর্যায়ে বিনয় ও তার স্ত্রী স্বর্ণা লাঠি দিয়ে তার মাথায় আঘাত করে ওই অবস্থায় তার স্ত্রী (অনিল চন্দ্র শুত্রধর) বেলি রানী এগিয়ে আসেন। তারা তারও মাথায় আঘাত করেন। তাদের চিৎকার শুনে ছোট ছেলে সুম্ভু সুত্রধর এগিয়ে আসেন। তারা সম্ভুকেও বেধড়ক মারপিট করে। পরবর্তীতে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে এনে ভর্তি করে। তার এবং বেলি নারীর মাথা ৫ থেকে ৬টি করে সেলাই দেয়া হয়েছে। তিনি খানিকটা সুস্থ হলেই অনিল ও স্বর্ণার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করবেন বলেও জানিয়েছেন।

(Visited 131 times, 1 visits today)